কালার ইনসাইড

সাবিনা-কৃষ্ণা-রুপনাদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ হবে কবে?

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail সাবিনা-কৃষ্ণা-রুপনাদের নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ হবে কবে?

সাতক্ষীরার মেয়ে মাসুরা পারভীন, ফুটবল খেলাই যার নেশা। সাতক্ষীরা পিটিআই স্কুলে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়াকালীন সময়ে তিনি খেলাধুলা শুরু করে। তার বাবা ভ্যানচালক রজব আলী। উপার্জনের একমাত্র সম্বল ভ্যানটিও ভেঙেচুরে নষ্ট হয়ে বাড়ির উঠানে পড়ে রয়েছে। বাড়িটি তৈরি টিনের ছাউনি দিয়ে । রজব আলী এখন অসুস্থ হওয়ায় কাজও করতে পারছেন না। মাসুরা যখন প্রথমদিকে খেলতে শুরু করেছিলেন, বিষয়টিকে ভালোভাবে নেননি তার বাবা। বাধার মুখে পড়েছিলেন পদে পদে।

মাসুরার বাড়ি সাতক্ষীরা সদরের বিনেরপোতা এলাকায়, সরকারিভাবে দেওয়া আট শতক জমিতে থাকে মাসুরার পরিবার। মা ফাতেমা বেগম, দুই বোন সুরাইয়া পারভীন ও সুমাইয়া ইয়াসমিনকে নিয়ে তার পরিবার। সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা দাবি করে ওই বাড়িতে ক্রস চিহ্ন দেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এরপর ভেঙে ফেলা হতে পারে বলে শঙ্কায় ছিলো তাঁদের পুরো পরিবার। তবে সব কিছু ছাপিয়ে সেই মাসুরা আজ দেশের গর্ব। সাফজয়ী নারী ফুটবল দলের ডিফেন্ডার মাসুরা। যাকে নিয়ে আজ সারাদেশে মাতামাতি।

গোল করেই আকাশের দিকে তাকালেন। এরপর প্রার্থনার ভঙ্গিতে বিড়বিড়িয়ে কিছু একটা বললেন ঋতুপর্ণা চাকমা। যেন গোলটা পাওয়ার অপেক্ষাতেই ছিলেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা মিডফিল্ডার। নেপালে মেয়েদের সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে দুই ম্যাচের কোনোটিতেই একাদশে ছিলেন না ঋতুপর্ণা।

মালদ্বীপের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে বদলি নেমেও তিনি গোল পাননি। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামতেই গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠেন তিনি। ততক্ষণে অবশ্য বাংলাদেশ পাঁচটি গোল দিয়েছে পাকিস্তানের জালে, জয়ও নিশ্চিত। পরে দলের হয়ে ৬ নম্বর গোলটা করেছেন ঋতুপর্ণা।

গোলটা ঋতুপর্ণা উৎসর্গ করেছেন অকালপ্রয়াত ভাই পার্বণ চাকমাকে। গত ২৯ জুন বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন পার্বণ। ভাই হারানোর শোক এখনো লেগে আছে ঋতুপর্ণার চেহারায়। জাতীয় দলের সবচেয়ে প্রাণোচ্ছল আর হাসিখুশি মেয়েটাই এখন সারাক্ষণ মনমরা হয়ে থাকেন। পরশু তিনি গোল পাওয়ার পর টিম বাসে উঠেও অনেকক্ষণ কেঁদেছেন। টিম হোটেলে গিয়েও রাতে কান্নাকাটি করেছেন। কাঠমান্ডুর আর্মি হেডকোয়ার্টার মাঠে গতকাল অনুশীলনের সময় সতীর্থরা হাসি–আড্ডায় মেতে থাকলেও ঋতুপর্ণাকে দেখা গেছে বিষণ্ণ।

বাবা ব্রজবাসী চাকমা ক্যানসারে ভুগে মারা গেছেন ২০১৫ সালে। বড় তিন বোন, ভারতী চাকমা, পামপি চাকমা ও পুতুলি চাকমার বিয়ে হয়ে গেছে। চার বোনের এক ভাই হওয়ায় সবচেয়ে আদরের ছিলেন পার্বণ। সেই আদরের ভাইকে হারিয়ে ভেঙে পড়েছেন ঋতুপর্ণা।

পার্বণের দুই বছরের বড় ঋতুপর্ণা। পিঠেপিঠি ভাই–বোন হওয়ায় দুজনের সম্পর্ক ছিল বন্ধুর মতো। ২০১৭ সালে জাতীয় বয়সভিত্তিক দলে ডাক পাওয়ার পর থেকে ঋতুপর্ণার সব ম্যাচ দেখেছেন পার্বণ। পাকিস্তানের বিপক্ষে গোলের পর তাই সবার আগে ছোট ভাইয়ের কথা মনে পড়ে ঋতুপর্ণার।

এই দুইটি গল্প কোন সিনেমার চিত্রনাট্য নয়। মাঝে মাঝে সিনেমার গল্পকেও হাড় মানায় বাস্তব কিছু গল্প। ঠিক তেমনি কিছু গল্প রয়েছে সদ্য দৃষ্টিনন্দন, শৈল্পিক এবং একই সাথে শ্বাসরুদ্ধকর ফুটবলের পসরা সাজিয়ে প্রথমবারের মতো সাফ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ঐতিহাসিক কীর্তিগাথা রচনা করে আসা বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দলের প্রতিটি খেলোয়াড়রে। ব্যক্তি জীবনের সব দুঃখ, কষ্টকে পিছনে ফেলে দেশের জন্য লড়ে গিয়েছেন নিজেদের সর্বোচ্চটুকু দিয়ে। সাফের ট্রফি নিয়ে দেশে এসেছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। বুধবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পা রাখেন সাবিনারা। তাদের বরণ করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। উপস্থিত ছিল বাফুফের প্রতিনিধিদলও।বিমানবন্দর থেকে শহর ঘুরে বাফুফে কার্যালয়ে সাবিনাদের নিয়ে যাওয়া হয় ছাদখোলা বাসে করে।

ফুটবল নিয়ে এই উন্মাদনা আজ থেকে নয়। বহু বছর আগে থেকেই চলছে এই উন্মাদনা। এমনকি ফুটবল নিয়ে হলিউড, বলিউড, ঢালিউডে নির্মিত হয়েছে অনেক চলচ্চিত্র। ফুটবল নিয়ে খুব একটা বড় বাজেটের সিনেমা নির্মাণ হয়নি। বড় বাজেট না হলেও আলোচিত বেশ কিছু সিনেমা রয়েছে ফুটবল নিয়ে।  হলিউড থেকে শুরু করে বলিউডেও অনেক সিনেমা নির্মিত হয়েছে ফুটবলকে নিয়ে।

সর্বকালের সেরা ফুটবলার পেলেকে নিয়ে ২০১৬ সালে হলিউডে নির্মিত হয় ছবি ‘পেলে-বার্থ অফ অ্যা লিজেন্ড’। ছবিটি দেখলে পেলের বেড়ে ওঠার পুরো ব্যাপারটা ভালো করে বোঝা যাবে।

এছাড়াও মদের নেশায় আসক্ত সাবেক এক ফুটবলারের জীবনের গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে ‘ইয়েস্টারডেস হিরো’। ১৯৭৯ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটি মন ছুঁয়েছে অনেকেরই। ফুটবল ম্যানেজারের জীবন নিয়ে নির্মিত সিনেমা ‘এ শট অ্যাট গ্লোরি’ সিনেমাটি মুক্তি পায় ২০০০ সালে।

ডেভিড বেকহ্যাম তখন সুপার ফর্মে। তখনই ভারতীয় বংশোদ্ভূত পরিচালক গুরিন্দর চাঁদা নির্মাণ করলেন ‘বেন্ড ইট লাইক বেকহ্যাম’।

গ্রেগরিস গার্ল (১৯৮১) ফুটবল নিয়ে ব্রিটিশ রোমান্টিক কমেডি আছে অনেকেরই পছন্দের তালিকায়। দেখতে পারেন ফুটবল নিয়ে হংকংয়ের অ্যাকশন কমেডি ছবি শাওলিন সকার। আরও দেখতে পারেন রুডো এন্ড কার্সি (২০০৮), ড্যামনেড ইউনাইটেড, হোয়েন স্যাটারদে কামস, মিন মেশিন, গ্রেসি ছবিগুলো।

ক্রিকেটের দেশ বলিউডে ফুটবল নিয়ে সিনেমা নেই বললেই চলে। কোন কোন সিনেমায় একটা কিংবা দুইটা দৃশ্য রাখা হয় ফুটবলের। যেমন ‘কাভি আলভিদা না কেহনা’য় শাহরুখের দৃশ্য। সেক্ষেত্রে ‘ধান ধানা ধান গোল গোল’ ছবিটাকে পূর্ণ মাত্রার সিনেমা বলা চলে। ‘সিকান্দার’ ছবিরও অনেকটা জুড়ে ছিল ফুটবল।

শুধু ফুটবল নয় ক্রিকেট নিয়েও কম দিনেমা নির্মাণ হয়নি। লাগান ছবি ক্রিকেট সম্পর্কিত ছবিগুলির মধ্যে একটি। অভিনেতা আমির এর দুর্দান্ত পারফরম্যান্স দর্শকদের মন কেড়ে নিয়েছিল। পরাধীন ভারতবর্ষের গ্রামের লোকজন তাদের জীবনযাত্রা এবং ইংরেজ সরকারের ব্যবহার তাদের প্রতি এই নিয়েই গল্প ছিল ওই ছবিটির। লাগান নামে একটি ক্রিকেট দল ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে সেখানে কর্ম করার জন্য ক্রিকেট খেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

মহেন্দ্র সিং ধোনির জীবন কাহিনী কে কেন্দ্র করে ২০১৬ সালে ক্রিকেট নিয়ে ছবি তৈরি হয়েছিল। আত্মঘাতী অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত সেই ছবিটিতে অভিনয় করেছিলেন। ধোনির ক্রিকেট নিয়ে জীবন সংগ্রাম এবং ২০১১ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপ জয় কে কেন্দ্র করে ছবিটি গড়ে উঠেছিল। তার ওই ছবিটি সুপার হিট হয়েছিল।

নব্বইয়ের দশকের সময় ভারতীয় অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের জীবনী নিয়ে তৈরি হয় ক্রিকেট মূলক ছবি আজহার, ইমরান হাশমি সেই ছবিতে অভিনয় করেছিলেন। ভারতীয় ক্রিকেটের খাওয়ার সময় এবং ম্যাচ ফিক্সিং সম্পর্কে সব কিছু ঘটনা ওই ছবিতে দেখানো হয়েছিল। তিনি তার সময়ে দুরন্ত ব্যাটিং করতেন কিন্তু ম্যাচ গড়াপেটা তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। তার ব্যক্তিগত জীবনে অশান্তির নানাদিক সেই ছবিতে তুলে ধরা হয়েছিল।

বাংলাদেশে প্রেক্ষাপটে তেমন ভাবে ফুটবল, ক্রিকেট কিংবা ক্রীড়া ভিত্তিক কোন খেলোয়াড় দিয়ে তেমন কোন চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়নি। যদিও ২০১০ সালে নির্মাতা খিজির হায়াৎ খান ফুটবল খেলা নিয়ে নির্মাণ করে ছিলেন জাগো নামের চলচ্চিত্র। এরপর তার তেমন ভাবে ক্রীড়া ভিত্তিক কোন চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়নি।

চলচ্চিত্র একটি দেশকে আন্তর্জাতিক ভাবে পরিচিত করিয়ে দেয়। দেশের শিল্প-সংস্কৃতি, খেলেধূলা সম্পর্কে বিশ্বকে জানান দেয়। হলিউড থেকে শুরু করে বলিউডের অনেক ক্রীড়া ভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়েছে। পাশাপাশি নামীদামী অনেক খেলোয়াড়দের জীবন নিয়েও নির্মিত হয়েছে বায়োপিক। যেগুলো বিশ্ব দরাবারেও প্রশংসিত হয়েছে। তবে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। 

যে মানুষগুলো তাঁদের ব্যক্তিজীবনের সব দুঃখ, কষ্টকে পিছনে ফেলে দেশের জন্য লড়ে জয় ছিনিয়ে আনছেন তাঁদের হয়তো আমরা সাময়িক কিছু সম্মাননা দিয়ে আনন্দ ভাগাভাগি করছি কিন্তু তাদের সংগ্রামী জীবনের অনেক কথাই আড়ালে থেকে যাচ্ছে। কখনো কী তাঁদের সেই সংগ্রামী জীবনের গল্প ফুটে উঠবে সেলুলয়েডের পর্দা?


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

বিয়ে ও সন্তান জন্মের তারিখ জানালেন বুবলী

প্রকাশ: ০৬:০৫ পিএম, ০৩ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail বিয়ে ও সন্তান জন্মের তারিখ জানালেন বুবলী

শাকিব খান ও বুবলীর সন্তান শেহজাদ খান বীরকে নিয়ে এখন আলোচনা তুঙ্গে। যদিও এতদিন তাদের সন্তানের বিষয়টি সবার কাছেই ছিল অজানা। তবে গত ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলা ইনসাইডারে শাকিব-বুবলীর সন্তান বীরকে নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়। এরপর শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে শাকিব খান ও বুবলী নিজেদের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে সন্তানের সঙ্গে ছবি দিয়ে বিষয়টি স্বীকার করে নেন। 

এদিকে, দুই বছর আগে বুবলী সন্তানের মা হলেও তিনি শাকিবের সঙ্গে কবে বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন সেই তথ্য জানা ছিল না কারও। তাই এ প্রশ্ন ঘুরেফিরে এসেছে বারবার।



অবশেষে সেই কৌতূহলও মিটিয়ে দিলেন বুবলী। আজ ৩ অক্টোবর নিজের ফেসবুক পেজে বিয়ের তারিখ প্রকাশ করেছেন তিনি। বুবলী জানান, শাকিবের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছে ২০ জুলাই। তবে কোনো বিয়ের কাগজপত্র প্রকাশ করেননি তিনি।

শাকিবের সঙ্গে বেশ কিছু ছবি প্রকাশ করে বুবলী লেখেন, ‘এখন পর্যন্ত আমার জীবনে স্মরণীয় দুটো তারিখ ২০.০৭.২০১৮ এবং ২১.০৩.২০২০। প্রথমটি আমার বিয়ের তারিখ। দ্বিতীয়টি ছেলে জন্মানোর।’

তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়ে আরও জানান, শাকিবের সঙ্গে ছবিগুলো তুলেছেন আমেরিকার টাইমস স্কয়ারে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে বরেণ্য নির্মাতা কাজী হায়াতের ‘বীর’ সিনেমা মুক্তির পরপরই ওই বছরের ২১ মার্চ যুক্তরাষ্ট্রে শাকিব খানের দ্বিতীয় সন্তান শেহজাদ খান বীরের জন্ম হয়। 

এর আগে ২০১৬ সালে জন্ম নেয় তার প্রথম সন্তান আবরাহাম খান জয়। সেই সন্তানের মা অপু বিশ্বাস।


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

এলো আদর-মাহির ‘এত আলো’

প্রকাশ: ০৪:৫২ পিএম, ০৩ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail এলো আদর-মাহির ‘এত আলো’

চিত্রনায়ক আদর আজাদ ও চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি জুটির ‘যাও পাখি বলো তারে’ সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে আগামী ৭ অক্টোবর। বর্তমানে পুরোদমে চলছে প্রচারণা। তারই অংশ হিসেবে সিনেমার টাইটেল গানের পর এবার ‘এত আলো’ শিরোনামে আরেকটি গান প্রকাশ করা হয়েছে।

গানটির কথা লিখেছেন এ মিজান। সুর করেছেন বেলাল খান। কণ্ঠও তার। গানটি রোববার (২ অক্টোবর) সন্ধ্যায় টাইগার মিডিয়ার ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয়েছে। গানের দৃশ্যায়নে উঠে এসেছে মাহিয়া মাহি ও আদর আজাদের রোমান্স। গানের দৃশ্যায়ন হয় কক্সবাজারে।

গানটি প্রসঙ্গে শিল্পী বেলাল খান বলেন, গানটি একটু আলাদাভাবে করতে চেয়েছি। একটি বাণিজ্যিক ধারার সিনেমাতে যে ধরনের গান থাকে আমি সে ধরন থেকে বের হতে চেয়েছি। কতটা পেরেছি, সেটা নির্ধারণ করবেন শ্রোতারা। গানের কথা লেখা থেকে সঙ্গীতায়োজন, সুর করা থেকে গাওয়া- সবকিছুতেই আলাদা একটা ফ্লেভার দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে। আশা করি, ভালো লাগবে।

এর আগে ২২ সেপ্টেম্বর প্রকাশ হয়েছে সিনেমাটির টাইটেল গান। যেখানে কণ্ঠ দিয়েছেন বেলাল খান ও সায়েরা রেজা। সুদীপ কুমার দীপের লেখা গানটির সঙ্গীতায়োজন করেছেন জেকে মজলিশ।

তার আগে গেলো ১৭ সেপ্টেম্বর প্রকাশ করা হয় সিনেমাটির ট্রেলার। তাতে আভাস পাওয়া যায়, ত্রিভুজ প্রেমের গল্পে নির্মিত হয়েছে এই সিনেমা। সেখানে মুখ্য চরিত্রগুলো ফুটিয়ে তুলেছেন আদর, মাহি ও শিপন মিত্র।

‘যাও পাখি বলো তারে’ সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। ক্লিওপেট্রা ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত এই সিনেমায় আরও অভিনয় করেছেন রাশেদ মামুন অপু, সুব্রত, মাহমুদুল ইসলাম মিঠু (বড়দা মিঠু), মাসুম বাশার, অভিনেত্রী রেবেকা রউফ, মিলি বাশার, লাবণ্য প্রমুখ। সিনেমাটির নির্বাহী প্রযোজক তমালিকা আকরাম।

জাহিদ হাসান অভির দ্য অভি কথা চিত্র পরিবেশিত ‘যাও পাখি বলো তারে’ সিনেমার কাহিনি, সংলাপ ও চিত্রনাট্য লিখেছেন আসাদ জামান। এর গান লিখেছেন সুদীপ কুমার দীপ, এ মিজান ও সঞ্জীবন চক্রবর্তী। ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক করেছেন ইমন সাহা। গানের সঙ্গীত করেছেন জেকে মজলিশ, বেলাল খান ও রেজওয়ান শেখ এবং গানে কণ্ঠ দিয়েছেন বেলাল খান, কোনাল, ইলিয়াস হোসাইন, সায়েরা রেজা, মোহাম্মদ জসিউর রহমান সেতু ও বিন্দিয়া খান।


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

বিপ্লব সাহার কণ্ঠে ‘পুজোয় ছুটি নাই’

প্রকাশ: ০৭:৪৪ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail বিপ্লব সাহার কণ্ঠে ‘পুজোয় ছুটি নাই’

চলছে দুর্গাপূজা। অনেক গান ও নাটক প্রকাশ পাচ্ছে এই উৎসব উপলক্ষে। ধারাবাহিকতায় এসেছে বিশ্বরঙ-এর কর্ণধার বিপ্লব সাহার কণ্ঠে ‘পুজোয় ছুটি নাই’। গানটি লিখেছেন জীবন ফারুকী। এতে সুর ও সংগীতায়োজন করেছেন রাজন সাহা। গানটি প্রকাশ হয়েছে মিউজিক ভিডিও আকারে। 

ভিডিওতে মডেল হয়েছেন অভিনেতা আজম খান, শিপন মিত্র, এন কাজলসহ একঝাঁক মডেল। 

এ গান নিয়ে বিপ্লব সাহা বলেন, এপার-ওপার দুই বাংলার একঘেয়েমি পূজার গানে যারা ক্লান্ত, আমাদের গানটি তাদের জন্য। পুজোর ছুটি নাই এটি কোনো গান নয়, অগণিত চাকরিজীবী মানুষের মনের কথা। যারা ছুটি পান না বসদের জন্য।

গত ১ অক্টোবর ইউটিউবে বিপ্লব সাহা ও বিশ্বরঙ-এর অফিসিয়াল চ্যানেলে প্রকাশ হয়েছে ‘পুজোয় ছুটি নাই’ গানটি।

বিপ্লব সাহা  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

প্যারালাইজড হয়ে হাসপাতালে নায়িকা রঞ্জিতা

প্রকাশ: ০৬:৫৬ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail প্যারালাইজড হয়ে হাসপাতালে নায়িকা রঞ্জিতা

আশির দশকের সাড়া জাগানো গান ‘পাথরের পৃথিবীতে কাঁচের হৃদয়’—গানটির কথা অনেকের মনে আছে হয়তো। গানটির ছবির নাম ‘ঢাকা ৮৬’। নায়করাজ রাজ্জাক পরিচালিত এ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন রঞ্জিতা ও বাপ্পারাজ। অকালপ্রয়াত সংগীতশিল্পী জুয়েলের বোন নায়িকা রঞ্জিতার বাঁ পা এবং বাঁ হাত অবশ হয়ে গেছে। বর্তমানে চিকিৎসা করার আর্থিক অবস্থা তার নেই।

রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি আছেন। গণমাধ্যমের কাছে জানাচ্ছেন বাঁচার আকুতি। গত ২৮ সেপ্টেম্বর স্ট্রোক করায় রঞ্জিতার পা-হাত অবশ হয়ে যায়। বৃহস্পতিবার তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আশির দশকের রঞ্জিতা বলেন, আমার কথা বলতেও কষ্ট হচ্ছে, আমি বাঁচতে চাই। আমি সুস্থ হয়ে উঠতে চাই, আমাকে সাহায্য করুন। এই শহরে আমার থাকার ব্যবস্থা নেই। আমার উপার্জনের পথ নেই। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া আমাকে আর কে বাঁচাতে পারেন, তিনি মমতাময়ী।

এই অভিনেত্রী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, আমার এক ভাই রয়েছে সেও প্রতিবন্ধী। আমার চিকিৎসা ব্যয়বহুল। আমার কোনো পথ নেই, আমি বেঁচে থাকতে চাই। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির কাছেও তিনি সহযোগিতার আহবান জানান। 

রাজ্জাক পরিচালিত ‘রাজা মিস্ত্রী’ ও 'জ্বিনের বাদশা’ সিনেমাতেও অভিনয় করেছিলেন রঞ্জিতা। অভিনয় ক্যারিয়ারে ২৯টি সিনেমায় নায়িকা হিসেবে দেখা গেছে তাকে।

নায়িকা   রঞ্জিতা  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

মার্কিন রাজনীতিতে যুক্ত হচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া!

প্রকাশ: ০৫:১৭ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail

বলিউড ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের জনপ্রিয় মুখ, অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়া সম্প্রতি মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সঙ্গে তাঁর আলোচনা পর্ব থেকে বেশ কয়েকটি ছবি এবং ভিডিও শেয়ার করেছেন। ইনস্টাগ্রামে প্রিয়াঙ্কা একটি দীর্ঘ নোটও লিখেছেন, যাতে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভোটাধিকারের বিষয়ে কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন যে আমি এ দেশে ভোট না দিলেও আমার স্বামী দেন এবং একদিন আমার মেয়ে দেবে। 

আলোচনায় ভারতে কিভাবে ইন্দিরা গান্ধী থেকে বর্তমান রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু পর্যন্ত নারীরা ‘সর্বোচ্চ নির্বাচিত পদে’ অধিষ্ঠিত হয়েছেন সে সম্পর্কে কথা বলেছেন প্রিয়াঙ্কা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ এখনো ‘চূড়ান্ত কাচের ছাদ ভেঙে যাওয়া’র মতো পরিস্থিতি দেখেনি বলেও মন্তব্য করেছেন এই অভিনেত্রী। তবে মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসের সঙ্গে প্রিয়াঙ্কার এমন গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় অনেকের মনেই দানা বাঁধছে একটি প্রশ্ন। তবে কি প্রিয়াঙ্কা মার্কিন রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হচ্ছেন? আপাতদৃষ্টিতে সেটি ধারণা করা হলেও মূলত ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটির উইমেন লিডারশিপ ফোরামে নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক একটি আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছিলেন এই ভারতীয় অভিনেত্রী।

ইভেন্টের জন্য প্রিয়াঙ্কা একটি দীর্ঘ হলুদ পোশাক এবং সাদা হিল পরেছিলেন। ওয়াশিংটন ডিসিতে ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটি (ডিএমসি) উইমেন লিডারশিপ ফোরামে  বক্তৃতা করেন প্রিয়াঙ্কা ও কমলা হ্যারিস।  

প্রিয়াঙ্কা তাঁর পোস্টের ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘যেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে সব জায়গায়ই নারীরা অন্তর্ভুক্ত। নারীরা ব্যতিক্রম নয়। নারীরা সক্ষম। আদিম সময়কাল থেকেই বিশ্ব নারীর ক্ষমতাকে খর্ব করেছে। আমাদের সব সময় এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে এবং নীরব করে রাখা হয়েছে। কিন্তু অনেক নিঃস্বার্থ নারীর সাহস এবং দৃঢ়তার জন্যই আজ নারীমুক্তি ঘটেছে। আমরা আজ এমন একটি জায়গায় আছি, যেখানে আমরা একসঙ্গে আসতে পারি এবং ভুল সংশোধনের জন্য সম্মিলিতভাবে কাজ করতে পারি। গত রাতে ওয়াশিংটন ডিসিতে উইমেনস লিডারশিপ ফোরাম কনফারেন্সে কমলা হ্যারিসের সঙ্গে আলোচনা করার যে সম্মান পেয়েছিলাম, তা একটি গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ ছিল আমার জন্য। ’

তিনি আরো লিখেছেন, যদিও আমি এই দেশে ভোট দিই না, কিন্তু আমার স্বামী দেন। একদিন আমার মেয়েও দেবে৷ ভিপি হ্যারিসের সঙ্গে আমার কথোপকথন হয়েছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোকে কেন্দ্র করে, যেগুলোকে সুরাহা করার জন্য একটি পরিষ্কার দৃষ্টিভঙ্গি এবং পরিকল্পনা থাকা দরকার৷ ডাব্লিউএলএফ এবং এই সংগঠনটির একজন প্রতিষ্ঠাতা শক্তি সেক্রেটারি হিলারি ক্লিনটনকে ধন্যবাদ, এই গুরুত্বপূর্ণ কথোপকথনে আমাকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য। 

এ ছাড়া প্রিয়াঙ্কা ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন, যেখানে তাকে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন প্রশাসনের দক্ষিণ এশীয় সদস্যদের সঙ্গে পোজ দিতে দেখা গেছে।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া মার্কিন মুলুকে পাড়ি জমিয়েছেন বহু আগেই। তিনি মার্কিন গায়ক নিক জোনাসকে বিয়ে করেছেন এবং তাদের একটি কন্যাসন্তান রয়েছে। প্রিয়াঙ্কা-নিকির কন্যার নাম মালতি মারি চোপড়া জোনাস। বর্তমানে নিজের পরিবারের সঙ্গেই ব্যস্ত রয়েছেন এই অভিনেত্রী।

মার্কিন   রাজনীতি   প্রিয়াঙ্কা চোপড়া  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন