এডিটর’স মাইন্ড

মনোনয়ন পাবেন না আলোচিত ৫

প্রকাশ: ০৬:০০ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail মনোনয়ন পাবেন না আলোচিত ৫

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রায় অর্ধেক আসনে বর্তমান সংসদ সদস্যদেরকে মনোনয়ন দিবে না। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সূত্রগুলো এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আওয়ামী লীগের কোনো কোনো নেতা বলছেন, দেড়শ না আরও বেশিও হতে পারে। ইতোমধ্যে গত নির্বাচনে যারা প্রার্থী ছিলেন, নির্বাচিত হয়েছিলেন তাদের এলাকার অবস্থান যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে, এলাকায় তাদের অবস্থা, তাদের জনপ্রিয়তা, তারা কোনো বিতর্কে জড়িয়েছেন কিনা, সংগঠনবিরোধী কর্মকান্ডের সঙ্গে আছেন কিনা ইত্যাদি নিয়েও তথ্যানুসন্ধান চলছে, চলছে একাধিক মাঠ জরিপ। তবে এই সমস্ত তথ্য উপাত্তের পাশাপাশি এরকম কয়েকজন নেতা আছেন যারা নিশ্চিতভাবে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না। কারণ, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলোর ব্যাপারে ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগ সভাপতি সুস্পষ্ট মনোভাব ব্যক্ত করেছেন এবং আগামী নির্বাচনে যে তারা মনোনয়ন পাবেন না এই সম্পর্কে তাদেরকে বার্তাটা পরোক্ষভাবে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরকম তালিকায় যারা রয়েছেন তাদের মধ্যে আছেন-

হাবিবে মিল্লাত: হাবিবে মিল্লাত সিরাজগঞ্জ-১ আসন থেকে নির্বাচিত এমপি। তিনি তার এলাকায় বিভক্তির সৃষ্টি করছেন বলে অভিযোগ করেছেন। তার এলাকায় প্রায় বিভিন্ন সময় ছাত্রলীগ এবং অঙ্গ সহযোগী সংগঠনগুলোর মধ্যে বিভক্তি হচ্ছে। আওয়ামী লীগের বাইরে গিয়ে তিনি নতুন একটি গ্রুপ তৈরি করেছেন, এমন অভিযোগও উঠেছে। এই কারণেই তাকে সিরাজগঞ্জ আওয়ামী লীগের পদ থেকেও সরিয়ে দেয়া হয়েছিল। হাবিবে মিল্লাত ইতোমধ্যেই লাল কার্ড পেয়েছেন বলে আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

পঙ্কজ দেবনাথ: বরিশাল-৪ আসন থেকে নির্বাচিত পঙ্কজ দেবনাথকে সাম্প্রতিক সময়ে দলের সব পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। যদিও এ অব্যাহতি মানে এই নয় যে তিনি আর সংসদ সদস্য পদে থাকতে পারবেন না। এখন তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে বহাল রয়েছেন। তবে আগামী নির্বাচনে তিনি যে বরিশাল-৪ থেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন না এটা মোটামুটি নিশ্চিত। 

মুরাদ হাসান: জামালপুর-৪ আসন থেকে নির্বাচিত মুরাদ হাসান তথ্য প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। তারপর তার বিভিন্ন রকম অসংলগ্ন কথাবার্তার জন্য তাকে পদত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর তিনি পদত্যাগ করেন। তার পদত্যাগের পরই তার এলাকার বিভিন্ন কমিটি থেকে তাকে বাদ দেয়া হয়। বর্তমানে পর্দার আড়ালে আছেন মুরাদ হাসান। কিন্তু আগামী নির্বাচনে তিনিও মনোনয়ন পাবেন না বলেই নিশ্চিত তথ্য পাওয়া গেছে। ওই নির্বাচনী এলাকায় একাধিক ব্যক্তি এখন নির্বাচন প্রচারণার কাজে ব্যস্ত রয়েছেন।

হাজী সেলিম: ঢাকা-৭ থেকে নির্বাচিত হাজী সেলিমের বিরুদ্ধে একটি দুর্নীতির মামলার রায় হয়েছে এবং ওই মামলায় তিনি দণ্ডিত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত তার সংসদ সদস্য পদ বাতিল হয়নি। এ নিয়ে নানা প্রশ্ন রয়েছে। তবে সংসদ সদস্য বাতিল হোক না হোক, সর্বোচ্চ আদালতের রায় যদি শেষ পর্যন্ত বহাল থাকে তবে আগামী নির্বাচনে হাজী সেলিমকে দেখা যাবে না।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন: ফরিদপুর-৩ থেকে নির্বাচিত দুইবারের এমপি খন্দকার মোশাররফ হোসেন আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাচ্ছেন না, এটি মোটামুটি নিশ্চিত। ফরিদপুরে তার ঘনিষ্ঠ লোকজনের ব্যাপক অর্থপাচার, লুটপাট, দুর্নীতির অভিযোগ গণমাধ্যমে বছর জুড়েই চাউর হয়েছে এবং এই সমস্ত অভিযোগে তার সহকারী একান্ত সচিব এবং তার ঘনিষ্ঠ কর্মীদেরও গ্রেফতার করা হয়েছে। বর্তমানে রাজনীতিতে তিনি এক ধরনের মৌনব্রত অবলম্বন করছেন এবং সবকিছু থেকেই তিনি নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন। আগামী নির্বাচনে যে ফরিদপুর-৩ আসন থেকে তিনি নির্বাচন করছেন না, এটা মোটামুটি নিশ্চিত।

এরকম আরও অন্তত ৩০ জন রয়েছেন, যারা ইতোমধ্যেই মাঠ ছেড়ে দিয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে যে সমস্ত অভিযোগগুলো রয়েছে সেই সমস্ত অভিযোগগুলোর কারণে তারা আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন পাবেন না বলে বার্তা দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কতজন নতুন প্রার্থীকে সামনে আনবে সেটি চূড়ান্ত হবে আরও পরে।


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

মেসি একা পারেননি, শেখ হাসিনা কি পারবেন?

প্রকাশ: ০৯:৫৯ এএম, ২৬ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

দিলীপ বড়ুয়া একজন ভাগ্যবান রাজনীতিবিদ। বাম রাজনীতি করলেও ক্ষমতার চারপাশেই তার আনাগোনা। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকাকালীন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম জিয়ার সফরসঙ্গী হয়ে চীন সফর করেছিলেন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে তিনি শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী হিসেবে পাঁচ বছর দায়িত্ব পালন করেন। তার সাম্যবাদী দলের তিনিই সর্বেসর্বা। কর্মী নেই, আসন নেই তবু তিনি মন্ত্রী হওয়ার বিরল সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন। ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর থেকে আওয়ামী লীগ একলা চলো নীতিতে।  এ কারণে বামপন্থি ওই নেতা অপাঙ্ক্তেয়। অনাদরে-অবহেলায় পরিত্যক্ত সরঞ্জামের মতো পড়ে আছেন। এরকম কষ্টে থাকলে তো যে কারোরই মন খারাপ হওয়ার কথা। দিলীপ বড়ুয়ারও হয়েছে। এ কারণেই ক্ষোভ ঝেড়ে এক সাক্ষাৎকার দিয়েছেন বিবিসিতে। ওই সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘জাতীয় আন্তর্জাতিক সবকিছু মিলিয়ে বাংলাদেশে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে, তাতে সুষ্ঠু নির্বাচনে অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের স্লোগানের মধ্য দিয়ে আদৌ নির্বাচন না-ও হতে পারে।’ বড়ুয়া একজন প্রবীণ রাজনীতিবিদ। বিবিসির সঙ্গে সাক্ষাৎকারে আওয়ামী লীগ সরকারের ব্যাপারে তার অভিমানের কথা যেমন বলেছেন, ঠিক তেমনি নির্বাচন নিয়ে তিনি যে শঙ্কার কথা বলেছেন, সেটি উড়িয়ে দেওয়ার মতো নয়। বরং বাংলাদেশের রাজনীতিতে আগামীর শঙ্কার বিষয়টা তিনি অকপটে এবং খোলামেলাভাবে বলেছেন।

বাংলাদেশে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০২৪ সালের জানুয়ারিতে হওয়ার কথা। এক বছর দুই মাস আগে থেকেই নির্বাচন নিয়ে রাজনীতির মাঠ আস্তে আস্তে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো নির্বাচন নিয়ে খোলামেলা কথাবার্তা বলছে। নির্বাচন নিয়ে সুশীল সমাজের ঘুম নেই। নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করেছে, গাইবান্ধার মতো নির্বাচন রুখতে তারা বদ্ধপরিকর। সবার উদ্যোগ, আয়োজন, উৎকণ্ঠা এবং কথাবার্তায় মনে হচ্ছে, সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠান নয়। আগামী নির্বাচন বানচাল করাই যেন একটি সম্মিলিত শক্তির প্রধান লক্ষ্য। আওয়ামী লীগ সরকারকে হটানোর প্রধান এবং অব্যর্থ অস্ত্র যেন নির্বাচন হতে না দেওয়া। এমনকি আগামী সংসদ নির্বাচন যেন না হয়, সে জন্য ক্ষমতাসীন দলের কেউ কেউ তৎপর। প্রশাসনের মধ্যেও ঘাঁপটি মেরে আছে নির্বাচন বানচাল করার অপশক্তি। তর্কের খাতিরে আমরা যদি ধরে নিই শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হলো না, তাহলে কী হবে? 

বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী পাঁচ বছর অন্তর জাতীয় সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা। এটি সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা। এই নির্বাচন না হলে দেশে একটি সাংবিধানিক শূন্যতা সৃষ্টি হবে। অসাংবিধানিক শক্তি ক্ষমতায় আসার সুযোগ পাবে। আবার সংবিধান কাটাছেঁড়া হবে। অগণতান্ত্রিক এবং অনির্বাচিত একটি সরকার জগদ্দল পাথরের মতো জনগণের বুকের ওপর চেপে বসবে। সে রকম একটি পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্যই কি সমন্বিত প্রয়াস? আবার কি দেশে একটি এক-এগারো আনার পাঁয়তারা চলছে?

গত তিনটি নির্বাচনেই আওয়ামী লীগ জয়ী হয়েছে। এর মধ্যে ২০০৮ সালের নির্বাচন বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি সেরা নির্বাচন। ২০১৪-এ বিএনপি নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে নির্বাচন বর্জন করে। অর্ধেকের বেশি আসনে বিনা ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়। জাতীয় পার্টি আংশিক রঙিন সিনেমার মতো ওই নির্বাচনে আংশিক অংশগ্রহণ করে। কিন্তু বিএনপি ওই নির্বাচন প্রতিরোধ করতে পারেনি। বাংলাদেশে ২০১৪ সালের মতো প্রধান প্রধান দলের অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচন হয়েছে মোট চারটি। ১৯৮৬ সালের ৭ মের নির্বাচন বিএনপি বর্জন করে। আওয়ামী লীগ ওই নির্বাচনে অংশ নেয়। নিশ্চিত পরাজয়ের মুখে ক্ষমতাসীন জাতীয় পার্টির নেতা সামরিক একনায়ক এরশাদ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা বন্ধ করে দেন। তারপর বানোয়াট ফলাফল বেতার এবং টেলিভিশনে প্রচার করা হয়। ওই নির্বাচনকে বলা হয় মিডিয়া ক্যু-এর নির্বাচন। ’৮৬-এর নির্বাচনের মাধ্যমে গঠিত সংসদের আয়ু ছিল মাত্র দেড় বছর। ১০ জুলাই সংসদের প্রথম অধিবেশন বসে। ১৯৮৭ সালের ৬ ডিসেম্বর রাষ্ট্রপতি তীব্র বিরোধী আন্দোলনের মুখে সংসদ বিলুপ্ত করেন। ১৯৮৮-এর ৩ মার্চের সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি কোনো দলই অংশ নেয়নি। আ স ম আবদুর রবের নেতৃত্বে কিছু রাজনৈতিক ভাঁড়কে নিয়ে সম্মিলিত বিরোধী দল এবং জাতির পিতার আত্মস্বীকৃত খুনিদের ফ্যাসিস্ট দল ফ্রীডম পার্টি ওই নির্বাচনে অংশ নেয়। ওই নির্বাচনে কোনো ভোট হয়নি। বানোয়াট ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ২৫ এপ্রিল ১৯৮৮-তে সংসদের প্রথম অধিবেশন বসে। ’৯০-এর ৬ ডিসেম্বর এরশাদের পতনের মধ্য দিয়ে এই সংসদ বিলুপ্ত হয়। প্রধান সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ ছাড়া আরেকটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি। মাগুরা, মিরপুর উপনির্বাচনে নজিরবিহীন কারচুপির পরিপ্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে। সে সময় বিএনপি বলেছিল, ‘পাগল এবং ছাগল ছাড়া কেউই নিরপেক্ষ নন।’ তীব্র গণআন্দোলন উপেক্ষা করে বেগম জিয়া নির্বাচনের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, জামায়াতসহ দেশের প্রায় সব রাজনৈতিক দল ওই নির্বাচন বর্জন করে। প্রতিরোধের ডাক দেয়। বিএনপি ছাড়া আত্মস্বীকৃত খুনিদের দল ফ্রীডম পার্টি ওই নির্বাচনে অংশ নেয়। তীব্র গণআন্দোলনের মুখে ’৯৬-এর ১৫ ফেব্রুয়ারি আসলে কোনো ভোট হয়নি। নির্বাচনে বিএনপির ৪৯ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। ভোট ছাড়াই কমিশন বিএনপি এবং ফ্রীডম পার্টির মধ্যে আসন বণ্টন করে একটি ভৌতিক ফলাফল ঘোষণা করে। এটা করতেই কমিশনের সময় লাগে পাঁচ দিন। গেজেট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কোনো রকমে ১৯ মার্চ রাতে সংসদ অধিবেশন বসানো হয়। এই সংসদের আয়ু ছিল মাত্র সাত দিন (চার কর্মদিবস)। নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিল পাস করেই এই সংসদ বিলুপ্ত হয়। প্রধান যে কোনো রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ ছাড়া সংসদ তার মেয়াদপূর্তি করতে পারে না- এরকম একটি ধারণা বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ২০১৪-তে বিএনপির ভোট বর্জনের পক্ষে প্রধান প্রেরণা ছিল এই সূত্রই। শুধু বিএনপি কেন, আওয়ামী লীগেরও অধিকাংশ নেতা এবং প্রার্থী মনে করেছিলেন, এই নির্বাচন একটি আপৎকালীন ব্যবস্থা। দ্রুতই আরেকটি নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ জন্য আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যে বিনা ভোটে জয়ী হওয়ার হিড়িক পড়ে। নির্বাচনের প্রচারণা এবং টাকা খরচ করা থেকে আওয়ামী লীগের বেশির ভাগ প্রার্থীই বিরত থাকেন। অল্প কিছু টাকা দিয়ে প্রতিপক্ষকে বসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলে। কোথাও কোথাও প্রশাসনকে ব্যবহার করে হুমকি দিয়েও প্রতিপক্ষকে নির্বাচন থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। ফলে দেড় শর বেশি আসনে ভোট হয়নি। যেসব স্থানে ভোট হয় সেখানেও ভোটারদের উৎসাহ-উদ্দীপনা ছিল না। ওই নির্বাচনের পর এক বিস্ময়কর ঘটনা ঘটে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির ভোটে গঠিত সংসদ তার মেয়াদপূর্ণ করে। এটার কারণ ছিল, বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতি। এ দেশের জনগণ বিএনপির জ্বালাও- পোড়াও এবং ধ্বংসাত্মক রাজনীতির বিরুদ্ধে অনাস্থা জানিয়েছিল ওই নির্বাচনকে মেনে নিয়ে। অবশ্য এর পেছনে আরেকটি ব্যাপার ছিল। ২০০৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত সময়ে আওয়ামী লীগের সুশাসন, উন্নয়ন। জনগণের জীবনে স্বাচ্ছন্দ্য আসছিল। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার হচ্ছিল। মানুষ পরিবর্তনে সায় দেয়নি। অনিশ্চয়তার সাগরে ঝাঁপ দিতে চায়নি। ২০১৮-এর নির্বাচন ছিল আওয়ামী লীগকে কলঙ্কিত করার ষড়যন্ত্র। ওই নির্বাচন যদি পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম সুষ্ঠু নির্বাচনও হতো তবু আওয়ামী লীগ জিতত। ২০১৮-এর নির্বাচনে বিএনপি শর্তহীনভাবে অংশ নিয়েছিল। দলটির অস্তিত্ব রক্ষার জন্য। ড. কামাল হোসেনকে নেতা মেনে বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিল নিশ্চিত পরাজয় জেনেই। কিন্তু কিছু অতি উৎসাহী চাটুকার দলীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের সম্ভাবনাকে গলা টিপে হত্যা করে। ওই নির্বাচনে যারা এটা করেছে, তারা আসলে গণতন্ত্রের শত্রু। ওই নির্বাচন সুন্দর হলে আজ এই সংকট হতো না। নির্বাচন নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলোর এমন অতিকথনের সুযোগও থাকত না। এখন বিএনপি সুযোগ পেয়েছে। নির্বাচন বর্জনের নামে তারা একটি অসাংবিধানিক টানেলে বাংলাদেশকে নিতে চাইছে। এখন রাজনীতির আসল খেলা হচ্ছে নির্বাচন হওয়া না হওয়ার লড়াই। এখানে মাঠের লড়াই কেবল গ্যালারি শো। আসল খেলা হচ্ছে পর্দার আড়ালে। যেখানে আওয়ামী লীগ সব সময়ই আনাড়ি এবং অপরিপক্ব। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এখন প্রতিদিন ‘খেলা হবে’ সেøাগানের ব্র্যান্ডিং করছেন। শামীম ওসমান উদ্ভাবিত, পশ্চিম বাংলার মমতা ব্যানার্জি কর্তৃক বাজারজাতকৃত এই বহুল চর্চিত সেøাগান বারবার বলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কোন খেলার কথা বলছেন? তিনি কি ভুল নিশানায় গুলি ছুড়ছেন? কারণ এবারের খেলাটা কে নির্বাচনে জিতবে তার প্রতিযোগিতা নয় বরং নির্বাচন করা না করার খেলা। সংবিধান রক্ষার খেলা। এই খেলায় কে জিতবে?

এখন বিশ্বকাপ জ্বরে কাঁপছে গোটা দেশ। সারা বিশ্ব। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা নিয়ে চলছে মাতামাতি। খেলা যেমন অনিশ্চয়তা, তেমনি রাজনীতিও। মঙ্গলবার একটা মিটিং শেষ করে অফিসে এলাম বিকাল ৪টা নাগাদ। অফিসে ঢুকেই দেখি হইচই। ঘটনা কী? জানলাম আর্জেন্টিনা-সৌদি আরব খেলা। এ জন্য আমার সহকর্মীদের এত উচ্ছ্বাস। জাস্টিন, রিফাতসহ আরও কয়েকজন আর্জেন্টিনার জার্সি পরে খেলা দেখছে। আর্জেন্টিনার সঙ্গে সৌদি আরবের যোজন-যোজন পার্থক্য। আর্জেন্টিনার ফুটবল ঐতিহ্য বিস্ময়কর। আর সৌদি আরবের বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলাটাই বড় অর্জন। এই খেলায় আর্জেন্টিনার জয় নিয়ে কারও কোনো সন্দেহ ছিল না। দেখার বিষয় ছিল কত ব্যবধানে আর্জেন্টিনা জিতবে। পেলে, ম্যারাডোনার পর এই বিশ্বে অন্যতম সেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসি। ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি। বিশ্বকাপের ট্রফিটা ছাড়া ফুটবলের এমন কোনো প্রাপ্তি নেই যা মেসি অর্জন করেননি। অনেক বোদ্ধা ক্রীড়া সমালোচক বলেন, মেসির জন্যই এবার আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ ট্রফিটা জেতা উচিত। মেসি যদি একটা বিশ্বকাপ জয় না করতে পারেন, তাহলে সেটা হবে ফুটবলের দুর্ভাগ্য। বিশ্বকাপে আসার আগে টানা ৩৬ ম্যাচ অপরাজিত লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। তাই তৃতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের মিশনেই কাতারে এসেছে আর্জেন্টিনা। খেলা শুরুর পর মনে হচ্ছিল সৌদি আরবকে নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করবে বিশ্বের তৃতীয় ফুটবল শক্তির দেশটি। ১০ মিনিটে গোল করেন মেসি। স্পর্শ করলেন অনন্য রেকর্ড। টানা চার বিশ্বকাপে গোল করা গ্রেটদের এলিট ক্লাবে প্রবেশ করেন ফুটবলের জাদুকর। কিন্তু তখন কে জানত বিস্ময়ের অনেক বাকি। দ্বিতীয়ার্ধের ৫ মিনিটের ঝড়ে ল-ভ- হয়ে গেল মেসির আর্জেন্টিনা। বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাসে অন্যতম আপসেট জন্ম দিয়ে জিতল সৌদি আরব। প্রথম ম্যাচে একমাত্র লিওনেল মেসি ছাড়া আর সব আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়কে নিষ্প্রভ, মøান লেগেছে। মেসি নিঃসঙ্গ একাকী। সতীর্থরা মেসিকে মোটেও সহযোগিতা করতে পারছেন না। এই খেলাটা একটা ব্যাপার পরিষ্কার করে দিল, তা হলো খেলা এক মহাতারকার বিজয়গাথা নয়। একটি সমন্বিত টিমওয়ার্ক। যেখানে জেতার জন্য সবাইকে অবদান রাখতে হয়। খেলার মতো রাজনীতিতেও টিমওয়ার্ক লাগে। নেতার বিশ্বস্ত, পরীক্ষিত, যোগ্য সহযোগী লাগে। লাগে সমঝোতা, বোঝাপড়া এবং সমন্বয়। আর্জেন্টিনা-সৌদি আরব খেলা দেখে আমার মানসপটে বাংলাদেশের রাজনীতির চিত্রটা ভেসে উঠল। ওই খেলায় যেমন মেসি ছিলেন একা। তাকে তার সতীর্থরা সহযোগিতা করতে পারেননি। ঠিক তেমনি আমার মনে হয় বাংলাদেশের রাজনীতিতেও শেখ হাসিনা একাকী। তাঁকে সহায়তা করার মতো যোগ্য লোক নেই সরকারে কিংবা দলে। টানা তিন মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকার দেশ পরিচালনা করছে। ১৪ বছর বাংলাদেশ এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছেছে। এই কৃতিত্ব একজনের, শেখ হাসিনার। তিনি দেশকে একাই এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রথম এবং দ্বিতীয় মেয়াদে তাও কয়েকজন দৃশ্যমান সহযোগী ছিলেন। কিন্তু তৃতীয় মেয়াদে এসে মনে হচ্ছে শেখ হাসিনা একাই লড়ছেন।

একটি সরকারে প্রধানমন্ত্রীর পর দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হলেন অর্থমন্ত্রী। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাক। বরিস জনসন তাকে অর্থমন্ত্রী (চ্যান্সেলর অব এক্সচেকার) নিযুক্ত করেছিলেন। অর্থমন্ত্রী হিসেবে করোনাকালীন বিভিন্ন উদ্ভাবনী উদ্যোগ নিয়ে তিনি ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হন। বিবিসির সঙ্গে তখন এক সাক্ষাৎকারে ঋষি বলেছিলেন, ‘বিশ্বে সবচেয়ে নিদ্রাহীন, দুশ্চিন্তাগ্রস্ত এবং অসুখী ব্যক্তি হলেন একটি দেশের অর্থমন্ত্রী।’ ঋষি সরকারের নতুন অর্থমন্ত্রী জেরেমি হান্ট। মঙ্গলবার তিনি গার্ডিয়ানে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘এই বিশ্বের কোনো অর্থমন্ত্রীর দম ফেলার সুযোগ নেই।’ জো বাইডেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে চমক সৃষ্টি করেন। অর্থমন্ত্রী (সেক্রেটারি অব ট্রেজারি) হিসেবে নিয়োগ দেন জ্যানেট ইয়েলেনকে। মার্কিন ইতিহাসে তিনিই প্রথম নারী অর্থমন্ত্রী। সম্প্রতি তীব্র অর্থনৈতিক সংকট এবং মুদ্রাস্ফীতির চাপে জর্জরিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটন পোস্টে এর পরিপ্রেক্ষিতে এক সাক্ষাৎকারে জ্যানেট ইয়েলেন বলেছেন, ‘এই দায়িত্বটা এমন যে, এক মুহূর্তও আপনি নিজের কথা ভাবতে পারবেন না।’ এই যখন দেশে দেশে অর্থমন্ত্রীদের অবস্থা তখন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রীর দর্শন প্রাপ্তিই যেন এক বিরাট খবর। যে কোনো সময়ে তার জন্য ‘নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি’ দেওয়া যেতেই পারে। সংকট উত্তরণে তিনি ভূমিকাহীন। কেন তিনি অর্থমন্ত্রী- এ প্রশ্নের উত্তর হয়তো তিনি নিজেই দিতে পারবেন না। বাণিজ্যমন্ত্রীর বাজারের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। তিনি কখন কী বলেন, তা নিয়ে রীতিমতো গবেষণা হতে পারে। বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী সরকারের জন্য কত বড় বোঝা তা নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যেই ব্যাপক আলোচনা শোনা যায়। রেলমন্ত্রী তো তার নিজ নির্বাচনী এলাকাকেই রেলের সদর দফতর বানিয়ে ফেলেছেন। তার কিঞ্চিৎ পুরনো হওয়া নববধূর মন্ত্রণালয়ের কাজে হস্তক্ষেপের পরও তিনি এটাকে শপথ ভঙ্গ মনে করতে রাজি নন। এ নিয়ে তিনি পদত্যাগের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করেননি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এখন সাংবাদিকতা শেখাচ্ছেন। এত বাচাল এবং অসংলগ্ন কথাবার্তা বলা পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশ কি আগে কখনো পেয়েছে? একা মেসি সৌদি আরবের সঙ্গেই হেরে গেছেন। এসব খেলোয়াড় (মন্ত্রী) দিয়ে শেখ হাসিনা কি পারবেন, ‘নির্বাচন বর্জন’ ষড়যন্ত্রকে হারাতে? এসব মন্ত্রী সামনে আরও বড় সংকটে কী করবেন? কিছু কিছু মন্ত্রী (সবাই নন) সরকারকে আরও ঝামেলায় ফেলছেন। কয়েকজনের কারণে সরকারের দুর্নাম হচ্ছে। মন্ত্রীদের যোগ্যতা, সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে আমরা যা জানি, তার চেয়ে বেশি জানেন শেখ হাসিনা। এ কারণেই তিনি মন্ত্রীদের ছেড়ে দিয়েছেন ফিতা কাটা, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলঙ্কৃত করে বক্তৃতা দেওয়ার জন্য। কাজ করাচ্ছেন আমলাদের দিয়ে। বাড়ির কাজের সহায়তাকারী যদি একবার বুঝে ফেলে তাকে ছাড়া বাড়ির লোকজন অসহায়, তাহলে তাদের কেউ কেউ পেয়ে বসে। জি বাংলা, স্টার জলসা দেখার সময় থেকে শুরু করে সুগন্ধি সাবানের দাবি ওঠে। প্রতিদিন চাহিদার ফর্দ লম্বা হতেই থাকে। আমলারা যখন বুঝে গেলেন, মন্ত্রীরা ‘কচিকাঁচা’ (প্রয়াত সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের ভাষা ধার করে) তখন কিছু কিছু আমলাও আবদারের তালিকাটা প্রতিদিন বাড়াচ্ছেন। এরা সরকারের সঙ্গে জনগণের মধ্যে দেয়াল তৈরি করছেন। রাজনীতি আর খেলার এক মৌলিক পার্থক্য আছে। ফুটবল বা ক্রিকেটে সমর্থকদের শুধু হাততালি দেওয়া কিংবা গলা ফাটিয়ে চিৎকার করা ছাড়া কোনো ভূমিকা থাকে না। সমর্থকরা পছন্দের দলকে জেতাতে পারেন না। কিন্তু রাজনীতির খেলায় সমর্থকরাই আসল। সমর্থকরাই শক্তি। সমর্থকরাই দলকে জেতান। আর সমর্থক সৃষ্টির জন্য প্রয়োজন সংগঠন এবং ভালো কাজ। সংগঠন শক্তিশালী হলেই সমর্থন বাড়ে। দল জনপ্রিয় হয়। আর সংগঠন না থাকলে বিশাল বড় নেতাও বিলীন হয়ে যান। সম্প্রতি মালয়েশিয়ার নির্বাচনে আধুনিক মালয়েশিয়ার প্রতিষ্ঠাতা মাহাথির মোহাম্মদের পরাজয় তার সবচেয়ে টাটকা উদাহরণ। ৫৩ বছরের রাজনৈতিক জীবনে মাহাথির প্রথম পরাজিত হলেন। জামানত হারালেন। কারণ তার সংগঠন ছিল না। নতুন রাজনৈতিক দলকে ঠিকঠাক মতো গড়ে তুলতে পারেননি ৯২ বছরের এই প্রবীণ রাজনীতিবিদ। আওয়ামী লীগ এখনো টিকে আছে, তৃণমূল পর্যন্ত সংগঠনের জন্যই। কিন্তু এখন যে জেলায়, উপজেলায় সম্মেলন হচ্ছে, তা কি মনে হচ্ছে আওয়ামী লীগের সংগঠন ঠিকঠাক আছে? নাকি সুবিধাবাদীর মতলববাজরা দখল করে নিয়েছে আওয়ামী লীগকে। সংগঠনে তারুণ্যের জয়ধ্বনি নেই। সেই বিতর্কিত পুরনো মুখরা আবার নেতৃত্বে আসছেন। এই সংগঠন কি নির্বাচনী খেলায় শেখ হাসিনাকে যোগ্য সহযোগিতা করতে পারবে? এই খেলা কঠিন হবে। এই খেলা ২০১৪ কিংবা ২০১৮-এর মতো হবে না। মাঠের খেলা আর রাজনীতির খেলায় একটি ব্যাপার হুবহু এক। মিরাকল। অনেক কিংবদন্তি একাই খেলার ভাগ্য পাল্টে দেন। যেমন ১৯৮৬-এর বিশ্বকাপে ম্যারাডোনা। রাজনীতিতেও কখনো কখনো মহামানবের উত্থান ঘটে। তার এক অঙ্গুলি হেলনে জনগণ উদ্বেলিত হয়। সব ষড়যন্ত্র নস্যাৎ হয়। যেমন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব। শেখ হাসিনার ধমনিতে সেই রক্ত। যখনই বিপর্যয়, যখনই কালো মেঘে ঢাকা অন্ধকার তখনই শেখ হাসিনা আলোকবর্তিকা হয়ে সামনে এসেছেন। একাই সংকট কাটিয়েছেন। এটাই হয়তো তাঁর খেলার কৌশল। ’৭৫ দেখেছেন, ২০০১ দেখেছেন, ২০০৪-এর ২১ আগস্ট দেখেছেন। দেখেছেন এক-এগারো।  এ জন্য হয়তো একাই ঝুঁকি নিতে চাইছেন। বিশ্বাস শব্দটাই তাঁর চিন্তা থেকে উবে গেছে। একাই তিনি জয়ী করতে চান বাংলাদেশকে, জনগণকে। কি তিনি পারবেন? মেসি পারেননি কিন্তু ম্যারাডোনা পেরেছেন।  শেখ হাসিনা কি পারবেন?



মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

কূটনীতিতে ডাবল ধাক্কা কি কাকতলীয়?

প্রকাশ: ০১:৫৬ পিএম, ২৫ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের বাংলাদেশ সফর করার কথা ছিলো। কিন্তু শেষ মুহূর্তের এই সফর বাতিল করা হয়েছে। সফর বাতিলের কারণ হিসেবে বলা হয়েছে যুদ্ধ নিয়ে তিনি অত্যন্ত ব্যস্ত থাকার কারণে তিনি বাংলাদেশে আসতে পারছেন না। সফর বাতিল করলেও তিনি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে টেলিফোনে আলাপ করছেন। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বহুল কাঙ্ক্ষিত জাপান সফর গতকাল স্থগিত হয়েছে। এই সফর স্থগিত হবার কোনো কারণ বলা হয়নি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন যে, তারিখ পুন:নির্ধারণ করা হবে। 

পরপর দু’টি সফর বাতিল কেবল কি কাকতালীয় নাকি এর পেছনে কোনো কূটনৈতিক ব্যর্থতা রয়েছে? বিশেষ করে এমন এক সময় এই দু’টি সফর বাতিল হলো যখন বাংলাদেশ কূটনৈতিক ক্ষেত্রে অনেকটাই একাকীত্বে ভুগছে এবং অর্থনৈতিক সঙ্কট মোকাবিলা করার জন্য সমর্থন এবং সহযোগিতা দরকার। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশে আসার কথা ছিলো একটি সম্মেলনে যোগ দেয়ার জন্য। তার সফর সূচিও চূড়ান্ত হয়েছিলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে তার বৈঠকের কথা ছিলো। দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করার কথা ছিলো পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে। এই বৈঠকে বাংলাদেশের অনেক ইতিবাচক অর্জন হতো যেটি বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং কূটনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারতো। কারণ রাশিয়া বিশ্বের অন্যতম প্রধান গম উৎপাদনকারী দেশ। তাছাড়া রাশিয়া থেকে জ্বালানি আনার বিষয়টিও সরকার বিবেচনা করছিলো। এরকম প্রেক্ষাপটে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সফরের মাধ্যমে  বাংলাদেশ হয়তো খাদ্য সহায়তা এবং জ্বালানি সহায়তার ক্ষেত্রে কিছু ছাড় পেতো। তাছাড়া এই সফরের মধ্য দিয়ে বাংলাদশের মুক্তিযুদ্ধের পরীক্ষিত বন্ধু রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের বন্ধুত্ব আরেকটু প্রগাঢ় হতো। যেটা আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে বাংলাদেশের জন্য ভারসাম্য রক্ষায় কাজে লাগতো। কিন্তু যুদ্ধের কারণে শেষ পর্যন্ত সফরটি বাতিল হয়েছে।

তবে, একাধিক কূটনৈতিক বিশ্লেষক মনে করছেন এই সফর বাতিল সাপে বর হয়েছে। কারণ রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী যদি এই সময় বাংলাদেশ সফর করতো তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো বাংলাদেশের ওপর চাপ আরও বাড়াতো। কারণ রাশিয়ার ওপর এখন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত কোন আন্তর্জাতিক ফোরামেই রাশিয়ার বিরুদ্ধে ভোট দেয়নি। এটা নিয়ে পশ্চিমা বিশ্বের এক রকম অস্বস্তি রয়েছে। অনেকে মনে করেন বাংলাদেশের ভূমিকা নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো কিছুটা অসন্তুষ্ট বটে। তাই রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী যদি বাংলাদেশ সফর করতো এবং উষ্ণ অভ্যর্থনা পেতো তবে দুই দেশের  সম্পর্কের প্রগাঢ়তা পশ্চিমা বিশ্বের উদ্দেশ্যে একটা ভুল বার্তা দিতো। সেদিক থেকে সফর না হওয়াটাই মন্দের ভালো হয়েছে। এখানে বাংলাদেশ কূটনৈতিকভাবে লাভবান হয়েছে বলেই বিশ্লেষকরা মনে করেন। 

অন্যদিকে জাপান বাংলাদেশের সবচেয়ে দীর্ঘদিনের পরীক্ষীত বন্ধু ও সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক মিত্র। যতবারই প্রধানমন্ত্রী জাপানে গিয়েছেন, ততবারই কিছু না কিছু এনেছেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে জাপানের সহায়তা সর্বজন বিদিত। এরকম একটি সময়ে জাপান সফরটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিলো। বিশেষ করে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে আইএমএফের ঋণ পাওয়ার পর জাইকা থেকে ঋণ প্রাপ্তি এবং বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রকল্পে জাপানের সহায়তা প্রাপ্তিটি বাংলাদেশের এই সংকটের জন্য ইতিবাচক হতো। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী জাপান সফর করার আগেই জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের ২০১৮ সালের নির্বাচন সম্পর্কে একটি মন্তব্য করেন। এই মন্তবের পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ অত্যন্ত ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখায় এবং আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী মন্ত্রী এর সমালোচনা করেন। পররাষ্ট্র সচিব জাপানের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে তার সাথে কথা বলেন। এরকম একটি প্রেক্ষাপটের মধ্যে হঠাৎ করে প্রধানমন্ত্রীর জাপান সফর বাতিল হওয়ার পেছনে অন্য কোন কারণ আছে কি না তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে আলোচনা চলছে। তবে, কূতনৈতিকরা বলছেন যে, জাপান সফর বাতিল হয়নি বরং পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। খুব শীঘ্রই একটি নতুন তারিখ নির্ধারণ করা হবে। জাপান সফর স্থগিত করা হয়েছে সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যগত কারণে। কারণ সেখানে করোনার প্রকোপ হঠাৎ করেই বেড়ে গেছে। এরকম পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাপান যাওয়াটা নিরাপদ নয় বিবেচনা করে সফর পেছানো হয়েছে। কাজেই এই দু’টি সফর বাতিল বাংলাদেশের কূটনীতির জন্য কোন বিপর্যয় নয়, বরং এটি ভবিষ্যতে বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক ফলাফল বয়ে আনবে বলেও কূটনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।



মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

আরও শতাধিক সরকারি কর্মকর্তা বাধ্যতামূলক অবসরে যাচ্ছেন

প্রকাশ: ০৬:৫৯ পিএম, ২৪ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

তথ্য ও সম্প্রচার সচিব মকবুল হোসেনের পর এবার বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া হলো উপসচিব রেজাউল করিমকে। তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট ভাবে ধর্ষণের অভিযোগ ছিল এবং বিভাগীয় তদন্তের পর তাকে বাধ্যতামূলক অবসরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সরকার এখন প্রশাসনের ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পাঁচটি অভিযোগের যেকোনো একটি প্রমাণিত হলেই সেই সরকারি কর্মকর্তাকে চাকরিতে রাখা হবে না বলে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো মনে করছে। তবে সবচেয়ে বেশি রাজনৈতিক বিষয়টি বিবেচনা করা হবে। নবম-দশম ব্যাচে যে সমস্ত সরকারি কর্মকর্তারা বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে সুবিধাভোগী ছিল এবং বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সহযোগী হিসেবে চিহ্নিত তাদের তালিকা করা হয়েছে। এরকম ৫৬ জন সরকারি কর্মকর্তাকে পাওয়া গেছে যাদের চাকরির মেয়াদ ২৫ বছর উত্তীর্ণ হয়েছে এবং যারা বিএনপি এবং জামায়াতের পক্ষে কাজ করতেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ কারণে তাদের পদোন্নতি বঞ্চিত হয়েছে। নবম ব্যাচের অধিকাংশ কর্মকর্তাই সচিব অথবা অতিরিক্ত সচিব হয়েছেন। এখন নবম ব্যাচের অনেকেই অবসরে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে কেউ কেউ আছেন যারা এখনও উপসচিব বা যুগ্ম-সচিবের পর্যায়ে পড়ে আছেন। এদের পদোন্নতি হয়নি একাধিক গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে। জানা গেছে যে, এই সমস্ত কর্মকর্তারা বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। এদের সঙ্গে বিএনপি-জামায়াতের এখনো যোগাযোগ রয়েছে। এই ৫৬ জনকে পর্যায়ক্রমে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট দুর্নীতির অভিযোগ আছে তাদের বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং তাদেরকেও বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর প্রক্রিয়া খুব শিগগিরই শুরু হবে বলে জানা গেছে।

ইতিমধ্যে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য আয়-ব্যয়ের হিসাব দেওয়া বা তাদের সম্পদের বিবরণী দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং এ সংক্রান্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী শৃঙ্খলা আইন অনুযায়ী যে সমস্ত সরকারি কর্মকর্তারা তাদের সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিল করবেন না তাদের বিরুদ্ধে পর্যায়ক্রমে ব্যবস্থা হবে। যাদের আর্থিক অনিয়ম পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে। অতীতে দেখা গেছে যে, যারা প্রশাসনে শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ড করতো, অসদাচরণ করতো বা দুর্নীতি করতো তাদের বিরুদ্ধে পদাবনতি বা বেতন কমিয়ে দেওয়ার মতো লঘু শাস্তি গুলো দেওয়া হত। কিন্তু সেই অবস্থান থেকে সরে আসছে সরকার। নির্বাচনের আগে প্রশাসনে একটি ক্লিন ইমেজ দাঁড় করাতে চায় আওয়ামী লীগ সরকার। আর এ কারণেই দুর্নীতি, অনিয়ম এবং সরকারের বিরুদ্ধে গোপন তৎপরতা যারা চালাবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এরকমভাবে ১০০ জনের একটি তালিকা তৈরি করা হয়েছে যাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে বাধ্যতামূলক অবসরের ধারাটি প্রয়োগ করা হবে।

সরকারের একাধিক সূত্র বলছে, ইতিমধ্যে পুলিশ প্রশাসনে পর্যায়ক্রমে বাধ্যতামূলক অবসর দেয়া শুরু হয়েছে। এই প্রক্রিয়ায় এখন পর্যন্ত ৭ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে অবসর দেওয়া হয়েছে। সামনে আরও ৪০ জনের অবসরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানা গেছে। পুলিশ প্রশাসন এবং সিভিল প্রশাসনে যারা অযোগ্য এবং সরকারের বিরুদ্ধে কাজ করে তাদেরকে চাকরি থেকে সরিয়ে দিয়ে সরকার বিরোধীদলের যে ষড়যন্ত্র সেটি মোকাবেলায় একটি কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে বলে বিভিন্ন মহল মনে করছে। আর নির্বাচনের আগে প্রশাসনের ভেতর থেকে যেন কোনো ক্ষতি সাধিত না হয়, সে ব্যাপারটি জন্যই এই শুদ্ধি অভিযান বলে সরকারের সূত্রগুলো বলছে।

সরকারি কর্মকর্তা   বাধ্যতামূলক অবসর  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

ক্ষমতা গ্রহণের প্রস্তুতি গ্রহণ করছে সুশীল সমাজ!

প্রকাশ: ১০:০০ পিএম, ১৯ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

বাংলাদেশের সুশীল সমাজ যখনই অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতার রদবদল হয় তখনই তারা ক্ষমতা গ্রহণ করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে ক্ষমতা গ্রহণের চেষ্টা করে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের সুশীল সমাজের তৎপরতা দৃশ্যমান। বিভিন্ন দূতাবাসগুলোতে প্রতিদিনের চা-চক্র ককটেল পার্টিতে সুশীল সমাজের উপস্থিতি লক্ষণীয়। শুধু তাই নয়, সুশীল সমাজ দেশের গণমাধ্যমে এমন সব তথ্য দিচ্ছে যে সমস্ত তথ্যের ভিত্তিতে মনে হতে পারে যে দেশের পরিস্থিতি বোধহয় খুবই খারাপ। পরিকল্পিতভাবে সুশীল নিয়ন্ত্রিত তিন-চারটি পত্রিকা সরকারকে ব্যর্থ হিসেবে প্রতিপন্ন করার আপ্রাণ চেষ্টা করছে। আর পর্দার আড়ালে সুশীল সমাজ ক্ষমতা গ্রহণের চেষ্টা করছে বলেও একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বাংলা ইনসাইডারকে নিশ্চিত করেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, বিএনপি এখন ক্ষমতা গ্রহণে রাজি নয়। সুশীল সমাজ এখন বিএনপিকে পরামর্শ দিচ্ছে আগামী নির্বাচনে কোনো পরিস্থিতিতে তারা যেন অংশগ্রহণ না করে। সুশীলরা খুব ভালো মতই জানে যে, সরকার কোনো অবস্থাতেই নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নেবে না। আর এর ফলে দলীয় সরকারের অধীনে বিএনপি এবং তার অনুগত সংগঠনগুলো যদি নির্বাচন করতে অস্বীকৃতি জানায় সেক্ষেত্রে সরকার একটি বড় ধরনের রাজনৈতিক সংকটে পড়বে এবং এই সংকটে এবার আন্তর্জাতিক মহল ২০১৪ সালের মত নির্বাচন করতে দেবে না বলেই সুশীল সমাজের অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ মনে করছেন। ফলে দেশে নির্বাচন নিয়ে অনিশ্চয়তা হবে। এই অনিশ্চয়তাই সুশীল সমাজের ক্ষমতায় আরোহণের পথ প্রশস্ত করে দেবে বলে কেউ কেউ মনে করছেন এবং এরকম একটি পরিকল্পনা নিয়েই সুশীল সমাজ কাজ করছে। সুশীল সমাজের ক্ষমতায় আসার জন্য পাঁচটি প্রক্রিয়া অনুসরণ করছে।

প্রথমত, বিরোধী দলকে ক্ষেপিয়ে তুলেছে। তারা যেন কোনো অবস্থাতেই আন্দোলন ছেড়ে চলে না যায় এবং রাজনৈতিক পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সেই জন্য সরকারকেও উত্ত্যক্ত করার চেষ্টা করছে।

দ্বিতীয়ত, সুশীল সমাজ দেশের মূল ধারার কয়েকটি গণমাধ্যমে লাগাতারভাবে সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এমন সব তথ্য-উপাত্ত দিয়ে বিভিন্ন প্রতিবেদন সাজানো হচ্ছে যাতে সাধারণ মানুষের কাছে বিশ্বাসযোগ্য হয় যে সরকার অর্থনৈতিক সংকট সামাল দিতে ব্যর্থ হচ্ছে।

তৃতীয়ত, কূটনৈতিক মহলের কাছে সুশীল সমাজ সরকারের বিরুদ্ধে নানা রকম অভিযোগ উত্থাপন করছে। অর্থনৈতিক সংকটের পাশাপাশি মানবাধিকার, সুশাসনের অভাব, দুর্নীতি ইত্যাদি বিষয় তুলে ধরে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সরকার সম্পর্কে একটি নেতিবাচক ধারণার সৃষ্টির চেষ্টা করছে।

চতুর্থত, সুশীল সমাজ চাইছে যে বাংলাদেশের ওপর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের একটি বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞা বা স্যাংশন আসুক। বিশেষ করে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বা সশস্ত্রবাহিনী যারা দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতীক তাদের বিরুদ্ধে যদি কোনো নিষেধাজ্ঞা আনা যায় তাহলে সরকারের অবস্থান নড়বড়ে হয়ে পড়বে বলেই তারা মনে করছে।

সর্বশেষ, সুশীল সমাজ ব্যবসায়ী মহলকে একীভূত করার চেষ্টা করছে সরকারের বিরুদ্ধে। আর তাই ব্যবসায়ী নিয়ন্ত্রিত সংগঠনগুলো এখন সরকারের পক্ষে অবস্থান গ্রহণ থেকে নিজেদেরকে কিছুটা দূরে সরিয়ে রেখেছে।

এই পাঁচ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সুশীল সমাজ মনে করছে যে এমন একটি পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে যাতে সরকার নির্বাচন করার মতো অবস্থায় থাকবে না এবং নির্বাচন না হলেই সুশীলদের ক্ষমতা গ্রহণের পথ প্রশস্ত হবে। বাংলা ইনসাইডার অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ড. মুহাম্মদ ইউনুসের নেতৃত্বে সুশীল সমাজের একটি থিংকট্যাংক ক্ষমতায় আসার জন্য নিবিড় ভাবে কাজ করছে। সার্বক্ষণিকভাবে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মহলের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখছে। এদের মধ্যে রয়েছেন- বদিউল আলম মজুমদার, দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, সৈয়দা রেজওয়ানা হাসান, ড. আসিফ নজরুলসহ আরও বেশ কয়েকজন সুশীল বুদ্ধিজীবী। এদের ধারণা যে, খুব শীঘ্রই এমন একটি পরিস্থিতি হবে যেখানে সরকার শেষ পর্যন্ত ক্ষমতায় ছেড়ে দিতে বাধ্য হবে। কিন্তু আরেকটি এক-এগারোর আনার মত সক্ষমতা বা সে রকম পরিস্থিতি তৈরি মত বাস্তবতা বাংলাদেশে আছে কিনা, সেটি হলো এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন।


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

মানি ইজ নো প্রবলেম

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ১৯ নভেম্বর, ২০২২


Thumbnail

রবিবার সকাল। বাসা থেকে অফিসের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছি। সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস তাই প্রচণ্ড যানজট। গাড়িতে বসে অফিসের টুকটাক কাজ সারছি। এর মধ্যেই আমার এক বন্ধুর ফোন। ধরতেই বলল, ‘দোস্ত খবর শুনছ। কোনো ব্যাংকে বোলে টাকা নাই। আটটা ব্যাংক নাকি দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে। আমি তো অল্প কিছু টাকা রাখছি ব্যাংকে। এখন কী করব?’ বন্ধুর টেলিফোন রাখতে না রাখতেই রংপুর থেকে ফোন করলেন এক আত্মীয়।  বললেন, ‘ব্যাংকে নাকি টাকা নাই। মাত্র কিছু টাকা আছে ব্যাংকে। এটাই তো সারা জীবনের সম্বল। এখন কী করব। অফিসে যেতে যেতে এরকম আরও কয়েকজনের ফোন। সবাই উদ্বিগ্ন, আতঙ্কিত। আমার এক অনুজ একটি বেসরকারি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তাকে ফোন করলাম আসলে ঘটনা কী জানার জন্য। তিনি তো হো হো করে হেসে উঠলেন। বললেন, ‘ভাই আপনিও কি এসব ফেসবুকের গুজবে বিশ্বাস করা শুরু করলেন? এসব ফালতু খবর একটা মহল ছড়াচ্ছে। কোনো ব্যাংকেই তারল্য সংকট নেই। তার কথায় আশ্বস্ত হলাম। তখনই মনে হলো ১৯৭৪ এর কথা। সে সময় একটি স্বনামধন্য পত্রিকায়জাল জড়ানো বাসন্তী ছবি ছাপা হয়েছিল। বলা হয়েছিল বাসন্তীর কোনো কাপড় নেই। লজ্জা নিবারণের জন্য বাসন্তী জালে আব্রু ঢেকেছে। ওই খবর সে সময় হইচই ফেলেছিল। বঙ্গবন্ধু সরকারকে ঘায়েল করার জন্য সে সময়ই বাসন্তীর সাজানো নাটক ব্যবহার করা হয়েছিল।৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর বাসন্তী বাসন্তী করে রাজনীতির মাঠে কত না অসত্য কুৎসিত আপত্তিকর কথাই ছড়ানো হলো।৮১- ১৭ মে আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নিয়ে দেশে ফেরেন শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনাই বাসন্তী নিয়ে মিথ্যাচারের স্বরূপ উন্মোচন করেছিলেন। নিজে গিয়েছিলেন বাসন্তীর বাড়িতে। জানা গেল বাসন্তী একজন প্রতিবন্ধী। ওই ছবি ছিল বানোয়াট। আওয়ামী লীগ সরকার সম্পর্কে জনমনে নেতিবাচক ধারণা সৃষ্টির জন্যই সে সময় বাসন্তীর ওই ছবি বানানো হয়েছিল। বাংলাদেশে অপসাংবাদিকতার ইতিহাস বাসন্তীর ছবি সম্ভবত সেরা দৃষ্টান্ত। বাসন্তীকে নিয়ে যারা সে সময় নোংরা খেলা খেলেছে তারা কেউই বাসন্তীর জন্য কিছুই করেনি। শেখ হাসিনাই বাসন্তীর জন্য ঘর বানিয়ে দিয়েছিলেন।৭৪- ফেসবুক, ইউটিউব ইত্যাদি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ছিল না। সংবাদপত্রে এক সাজানো ছবিই আওয়ামী লীগের অনেকটা সর্বনাশ করেছিল। এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের যুগ। এসব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যেন গুজবের ফ্যাক্টরিতে পরিণত হয়েছে। সর্বশেষ গুজব হলো- ব্যাংকে টাকা নেই। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এখন চোখ রাখলে মনে হবে, বাংলাদেশ বোধহয় দেউলিয়া হওয়ার পথে। সরকার পতনের দিনক্ষণও দেওয়া হচ্ছে। সবচেয়ে ভয়ঙ্কর হলো এমন সব গুজব ছড়ানো হচ্ছে, যা জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। লক্ষণীয় ব্যাপার হলো, প্রথমে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। এরপর নিয়ে বিরোধী নেতারা বক্তব্য রাখছেন। অবশেষে তা মূল ধারার গণমাধ্যমে উপস্থাপন করা হচ্ছে। আপনাকে অসত্য তথ্য বিশ্বাস করতে বাধ্য করা হচ্ছে। ব্যাংকে টাকা নেই, গুজব ছড়ানোর আগেই গুজব ছড়ানো হলো আমাদের রিজার্ভে টাকা নেই। বাংলাদেশ দেউলিয়া হওয়ার পথে। ৪৮ বিলিয়ন ডলার ছিল বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রিজার্ভ। এটি আমাদের একটা গর্ব করার বিষয় ছিল। কিন্তু করোনা মহামারি আর বৈশ্বিক সংকটের কারণে রিজার্ভ কমছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের সব দেশেই রিজার্ভ কমছে বৈশ্বিক সংকটের কারণে। একটি দেশে যদি তিন মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর মতো বৈদেশিক মুদ্রা মজুদ থাকে তাহলে সেটাকে নিরাপদ মনে করা হয়। বাংলাদেশে এখন যে নিট রিজার্ভ মজুদ আছে তা দিয়ে চার মাসের বেশি আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব। তাই রিজার্ভ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। আইএমএফের হিসাব অনুযায়ী বিশ্বে সবচেয়ে বেশি বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আছে চীনে। অক্টোবরের শেষে দেশটির রিজার্ভ ছিল ৩০৫২ বিলিয়ন ডলার। অথচ জুলাইয়ে দেশটির রিজার্ভ ছিল হাজার বিলিয়ন ডলার। মাত্র তিন মাসে চীনের রিজার্ভ কমেছে প্রায় হাজার বিলিয়ন ডলার। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের দিক থেকে প্রথম ১০টি দেশের একটি ভারত। জুনের শেষে ভারতের রিজার্ভ ছিল ৫৯৯ বিলিয়ন ডলার। অক্টোবরের শেষে এসে তা কমে ৫২০ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। মজার ব্যাপার হলো, বিশ্বের সবচেয়ে সম্পদশালী দেশ হিসেবে পরিচিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। অথচ যুক্তরাষ্ট্র রিজার্ভের দিক থেকে প্রথম ১০টি দেশের মধ্যে নেই। যুক্তরাষ্ট্রের রিজার্ভ ২৪২ বিলিয়ন ডলার। বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভের দিক থেকে যে দেশগুলো সংকটে আছে তার একটি তালিকা প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক। বিশ্বব্যাংকের রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে- ‘বিশ্বে অর্থনৈতিক দিক থেকে সবচেয়ে সংকটে থাকা দেশ শ্রীলঙ্কা। দেশ এখন দেউলিয়া প্রায়। রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ীশ্রীলঙ্কার পাশাপাশি লেবানন, রাশিয়া, সুরিনাম এবং জাম্বিয়া খেলাপি ঋণের দেশ। অতি সম্প্রতি বেলারুশও খেলাপির তালিকায় নাম লিখিয়েছে। মুহূর্তে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে যে দেশগুলো আছে তার একটি তালিকাও প্রকাশ করেছে বিশ্বব্যাংক। ওই তালিকায় যেসব দেশের নাম রয়েছে সেগুলো হলো- আর্জেন্টিনা, ইকুয়েডর, মিসর, এল সালভাদর, ইথিওপিয়া, ঘানা, কেনিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, তিউনিশিয়া এবং ইউক্রেন। পাঠক লক্ষ করুন তালিকায় বাংলাদেশ নেই। তাহলে বাংলাদেশকে দেউলিয়া বানানোর প্রাণান্ত চেষ্টা কেন? কিছুদিন আগে আইএমএফ প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফর করে গেল। সফরের মধ্যেই গুজব ছড়ানো হলো যে, বাংলাদেশকে আইএমএফ ঋণ দিচ্ছে না। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পরিকল্পিত গুজবকে লুফে নিলেন কিছু রাজনীতিবিদ। তারা একযোগে বাদ্য বাজাতে শুরু করলেন। এরপর দেশের শীর্ষস্থানীয় কয়েকটি গণমাধ্যম গুজবকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে আদাজল খেয়ে মাঠে নামল। অর্থনীতিবিদ থেকে সদ্য রাজনীতিবিদ বনে যাওয়া এক দেবদূত যেন আইএমএফের মুখপাত্র হিসেবে আবির্ভূত হলেন। ঘোষণা করলেনবাংলাদেশ ঋণ পাচ্ছে না। তার বক্তব্য যখন ডাহা মিথ্যা প্রমাণ হলো তখন কোনো গণমাধ্যম তাকে জিজ্ঞাসা করল নাআপনি এভাবে অসত্য তথ্য কীভাবে দিলেন সরকারের বিরুদ্ধে অবিরাম মিথ্যাচার করলে আপনি জাতির বিবেক, সাহসী মানুষ। আর সত্য তুলে ধরলেই আপনি সরকারের দালাল। সবাই মিলে যেন বাংলাদেশকে পঙ্গু, বিবর্ণ, দেউলিয়া প্রমাণের বিরামহীন চেষ্টা। কিন্তু কেন? পুঁজিবাদী বিশ্বে বলা হয়, সবকিছুর মূলে বাজার এবং অর্থ। বিদেশে বসে যারা নিরন্তর বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে তারা যে বিনে পয়সায় এসব করছে না তা বলাই বাহুল্য। তাদের নিয়মিতভাবে মাসোহারা দিয়ে পোষা হচ্ছে। এখন যে পরিকল্পিত গুজব ছড়ানো হচ্ছে সেগুলোর পেছনেও লোভনীয় অর্থের হাতছানি আছে। বাংলাদেশকে ক্ষতবিক্ষত করতে কেন এত বিপুল অর্থ ব্যয় হচ্ছে? এর কারণ খুবই সহজ সরল এবং পরিষ্কার। রাজনৈতিক লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্যই এসব গুজবকে রীতিমতো শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। রাজনৈতিক লক্ষ্য হলো আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতা থেকে হটানো। একটি রাজনৈতিক দলকে ক্ষমতা থেকে হটানোর একমাত্র গণতান্ত্রিক পথ হলো নির্বাচন। সেজন্য জনমত গঠন করতে হয়। ভোটে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করেই ক্ষমতাসীন দলকে পরাস্ত করতে হয়। ক্ষমতা থেকে নামাতে হয়। কিন্তু বাংলাদেশে সরকারকে ক্ষমতা থেকে হটাতে এখন ভিন্ন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। প্রক্রিয়ার কয়েকটি ধাপ রয়েছে। প্রথম ধাপ, অবিরত সরকারের বিরুদ্ধে অসত্য ভিত্তিহীন তথ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে হবে। এসব অপপ্রচারভাইরাল করতে হবে। দ্বিতীয় ধাপ, অপপ্রচারের সূত্র ধরে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো প্রচারণা করবে। ওই গুজবগুলোকে জায়েজ করবে। তৃতীয় ধাপ, বিরোধী দলের বক্তব্যের সূত্র ধরে মূল ধারার কিছু গণমাধ্যম সংকট, ব্যর্থতা ইত্যাদি নিয়ে ফলাও করে প্রচার করবে। চতুর্থ ধাপ, ক্ষমতার লোভে অস্থির কিছু সুশীল নিয়ে নিয়মিত টকশোতে গিয়ে কথা বলবেন, কলাম লিখবেন। পঞ্চম ধাপ, সবকিছু নিয়ে সরাসরি জনগণের কাছে গিয়ে অসত্য তথ্যগুলো বলা হবে। ষষ্ঠ ধাপ, কিছু কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করা হবে। সপ্তম ধাপ, দাতা দেশ, সংস্থা এবং পশ্চিমা দেশের বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার করে সরকারকে চাপে ফেলা হবে। সাত ধাপ পেরোলেই সাফল্য- এটাই এখন বাংলাদেশের রাজনীতি। চতুর্থ ধাপ পর্যন্ত ঘটনা প্রবাহ দৃশ্যমান। কিন্তু পঞ্চম ধাপের ঘটনাগুলোকে আমরা উপেক্ষা করছি। কদিন আগে সৌদি আরব থেকে এক ব্যক্তি আমাকে ফোন করলেন। আমার লেখা পড়ে মাঝেমধ্যেই তিনি ফোন করেন। অনেক বিষয়ে পরামর্শ দেন। তিনি আমাকে বললেন, এখানে প্রবাসী ভাইদের কাছে বিএনপি-জামায়াতের লোকজন গিয়ে কথা বলছেন। তারা কঠিন পরিশ্রম করে দেশে পরিজনকে সুখে রাখার সংকল্পে দৃঢ় মানুষগুলোকে বিভ্রান্ত করছে।

তিনি বললেন, ‘প্রবাসীদের বলা হচ্ছে- ব্যাংকিং চ্যানেলে টাকা পাঠানো নিরাপদ না। আপনার টাকা মার যাবে। আপনি টাকা দেন, আমি হুন্ডি করে দিচ্ছি। তার মতে, সৌদি আরবে এখন হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানোর হিড়িক পড়েছে। টাকা পাঠাতে সময় লাগছে ১০ মিনিট। একজন অভিবাসী ভাইয়ের কাছ থেকে টাকা নিয়েই ওই রাজনৈতিক ব্যক্তি বাংলাদেশে ফোন করছেন। পরিবারের ঠিকানা বাংলাদেশে থাকা ব্যক্তিকে জানিয়ে দিচ্ছেন। বাংলাদেশের ওই ব্যক্তিটি টাকা নিয়ে চলে যাচ্ছেন প্রাপকের বাসায়। ফোনে সৌদি প্রবাসীকে তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলিয়ে দিচ্ছেন। পরিবারের সদস্য টাকা বুঝে পাওয়ার কথা নিশ্চিত করতেই অপর প্রান্তের কর্মী বলছেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ। এভাবেই সৌদি আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, ওমান, জর্ডানসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে চলছেহুন্ডি মিশন। আর কারণেই কাগজ-কলমে প্রবাসী আয় কমছে। টাকা আসছে অবৈধ পথে। শুধু কি বিদেশে? দেশে কী হচ্ছে? রবিবার সোমবার ব্যাংকে টাকা নেই বলে যে গুজব ছড়ানো হলো তার নেপথ্যেও বিএনপি এবং জামায়াতের নেতা-কর্মীরা। ঢাকার একজন বিএনপির পরিচিত নেতা তার ফেসবুকে লিখলেন- ‘ব্যাংক থেকে লাখ টাকা তুলতে গেলাম। ব্যাংকে টাকা নেই... এভাবে আমি পাঁচজন বিএনপি নেতার ফেসবুক স্ট্যাটাস দেখলাম। শব্দ আর টাকার অংকের হেরফের আছে কিন্তু মূল বক্তব্য একই। একজন বিএনপি নেতা তার বাড়িতে রীতিমতো কর্মিসভা করে বলেছেন- সবাই ব্যাংকে যাবে, যার যা টাকা আছে তুলে নেবে। এভাবে পরিকল্পিতভাবে ব্যাংকিং খাতকে একটা সংকটে ফেলার চেষ্টা চলছে। তবে এক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের ত্বরিত পদক্ষেপের প্রশংসা করতেই হয়। গুজবকে পল্লবিত হতে দেয়নি বাংলাদেশ ব্যাংক। দ্রুত প্রেস বিজ্ঞপ্তি এবং সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জনগণকে আশ্বস্ত করছে। এরকম পদক্ষেপ যদি ডলার নিয়ে সরকার কিংবা বাংলাদেশ ব্যাংক করতে পারত তাহলে দেশের ডলার পরিস্থিতি এত নাজুক হতো না। সেদিন একজন অর্থনীতিবিদ বলছিলেন, ডলার এখন শেয়ার মার্কেটের মতো ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। অনেকে মুনাফার আশায় ডলার কিনে বাসায় রাখছে। এখানেও বিএনপি-জামায়াতের রাজনৈতিক কূটকৌশল। দুই দলের বিত্তবান নেতা-কর্মীরা বাজার থেকে মুড়িমুড়কি কেনার মতো ডলার কিনে মজুদ রেখেছেন। ওই অর্থনীতিবিদ বলছিলেন, পাসপোর্ট, বিদেশ যাওয়ার টিকিট এবং ভিসা ছাড়া এখন ডলার বিক্রি বন্ধ করা উচিত। একজন ব্যক্তি চাল, ডাল, আদা, লবণের মতো ডলার কিনবেন এটা কী করে হয়? এখন যে প্রবণতা চলছে তাতে বাজারকে স্থিতিশীল করার জন্য যত ডলারই ছাড়া হোক না কেন, সংকট কাটবে না। এখন একটি সংঘবদ্ধ রাজনৈতিক বাহিনী মাঠে নামানো হয়েছে। এদের কাজ হলো খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে সংকট সৃষ্টি করা। এটা তাদের জন্য লাভজনক ব্যবসাও বটে। প্রশ্ন হলো, এত বিপুল ডলার কেনার টাকা বিএনপি বা জামায়াতের নেতা-কর্মীরা কোথায় পাচ্ছেন। প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপির মহাসমাবেশগুলোর বৈশিষ্ট্যগুলো খানিকটা খতিয়ে দেখা দরকার। সন্দেহ নেই, বিভিন্ন বিভাগীয় শহরে বিএনপি যে জনসভাগুলো করছে তাতে বিপুল জনসমাগম হচ্ছে। নেতা-কর্মীরা সেখানে যোগ দিচ্ছেন। প্রতিটি সমাবেশের আগে অযাচিতভাবে পরিবহন ধর্মঘটের নাটক করা হচ্ছে। এতে ক্ষমতাসীন দলের লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হচ্ছে। বিভিন্ন জেলা থেকে বিএনপির কর্মীরা দুই-তিন দিন আগেই সমাবেশ হবে যে শহরে সেখানে আসছেন।বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর ডিজিটাল প্ল্যাটফরমে ফরিদপুরের সমাবেশে কিছু কর্মীর সাক্ষাৎকার দেখছিলাম। সেখানে কর্মীরা বলছেন, তারা তিন দিন আগে সমাবেশে যোগ দিতে এসেছেন। তাদের আসা-যাওয়া, থাকা-খাওয়ার খরচ কে দিচ্ছে? দল দিচ্ছে। আগের দিন সমাবেশস্থলে রীতিমতো পিকনিকের উৎসব। বিরিয়ানি, তেহারি, খিচুড়ি রান্নার লোভনীয় দৃশ্য আমরা প্রত্যক্ষ করছি। সাধারণভাবে হিসাব করলে দেখা যায়, একেকটি সমাবেশে ১০ থেকে ১৫ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। এত টাকা বিএনপি পাচ্ছে কোত্থকে? গত ২৮ জুলাই বিএনপি তাদের আয়-ব্যয়ের হিসাব নির্বাচন কমিশনে জমা দিয়েছে। এতে দেখা যায়, গত বছর দলটির আয় হয়েছে ৮৪ লাখ ১২ হাজার ৪৪৪ টাকা। দলের সদস্যদের মাসিক চাঁদা, মনোনয়ন ফরম বিক্রি, ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান থেকে অনুদান এবং এফডিআরের লভ্যাংশ থেকে টাকা আয় হয়েছে বলে হিসাব বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়েছে। একই সময় দলটির ব্যয় হয়েছে কোটি ৯৮ লাখ ৪৭ হাজার ১৭১ টাকা। কর্মচারীদের বেতন-বোনাস, ক্রোড়পত্র বিল, অফিস খরচসহ বিভিন্ন খাতে ব্যয় হয়েছে বলে বিএনপির দাখিলকৃত হিসাব বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়েছে। বিএনপির আয়-ব্যয়ের হিসাব অনুযায়ী দলটি কোটি ১৪ লাখ ৩৪ হাজার ৭২৭ কোটি টাকার ঋণে জর্জরিত। বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হচ্ছে বলে দলটির নেতারা প্রতিদিন গলা ফাটিয়ে বক্তৃতা দেন, সেই দলটির অবস্থাই আসলে শ্রীলঙ্কার মতো। কাগজ-কলমে দায়দেনাগ্রস্ত একটি রাজনৈতিক দল সপ্তাহে ১০-১৫ কোটি টাকা হাওয়ায় উড়াচ্ছে কীভাবে? বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সামরিক একনায়ক জিয়াউর রহমান বলেছিলেন, ‘মানি ইজ নো প্রবলেম। ক্যান্টনমেন্টে বসে সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার সহায়তায় জিয়া বিএনপি গঠন করেছিলেন। টাকা দিয়ে অন্য দলের লোক ভাগিয়ে এনেছিলেন। দল গঠনের জন্য ব্যবসায়ী, শিল্পপতিদের হুমকি দিয়ে চাঁদা নিতেন এমন অভিযোগ লিখে গেছেন প্রয়াত বিএনপি নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। আওয়ামী লীগকে নিঃশেষ করতে এবং বিএনপিকে একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার জন্য তিনি বলেছিলেনমানি ইজ নো প্রবলেম। বিএনপির রাজনীতির মূলমন্ত্র এটি। এখন আবারমানি ইজ নো প্রবলেম তত্ত্বের বাস্তব প্রয়োগ দেখছে বাংলাদেশ। টাকা দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের প্রায় পুরোটাই দখল করে নিয়েছে বিএনপি-জামায়াত। লবিস্ট নিয়োগ করে সরকারকে চাপে ফেলা হয়েছে। ্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ওই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল গত বছর ১০ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসে। আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ ডেকেছে বিএনপি। একটু কান পাতলেই বিএনপি নেতাদের চাপা উল্লাসের কথা শোনা যায়। ওই দিন নাকি বাংলাদেশের ওপর আরেকটি বড় নিষেধাজ্ঞা আসছে। নিষেধাজ্ঞা গত বছরের নিষেধাজ্ঞার চেয়েও ভয়ঙ্কর হবে। বাংলাদেশ স্তম্ভিত হবে এমন কথাও শুনি। ১০ ডিসেম্বরের সভা সমাবেশ নিয়ে নয়, আসন্ন নিষেধাজ্ঞা নিয়েই বিএনপি খুশিতে বাকবাকুম করছে। টাকা নাকি কথা বলে। এখন তো তার সত্যতাও দেখা যাচ্ছে। বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতরা এখন বিএনপি নেতাদের ভাষায় কথা বলছেন। সরকারকে হটাতে বিএনপি টাকার বন্যা বইয়ে দিচ্ছে। মানি ইজ নো প্রবলেম। কিন্তু টাকাটা আসছে কোত্থেকে? কদিন আগে শুনলাম আওয়ামী লীগের নেতা বলছেন, ‘ব্যবসায়ীদের ভয়ভীতি হুমকি দিয়ে মোটা অংকের টাকা নিচ্ছে বিএনপি নেতারা। ব্যবসায়ীরা কি নাদান শিশু। তাদের ভয় দেখাল আর কোটি কোটি টাকা বের করে দিলেন। ভয়ভীতি দেখিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়া হচ্ছে এমন ধারণার সঙ্গে আমি একমত নই। কিছু কিছু ব্যবসায়ী এখন বিএনপিপ্রেমিক হয়ে উঠেছেন। ২০০১ সালের অক্টোবরে নির্বাচনের পরহাওয়া ভবন কেন্দ্রীয় ব্যবসায়িক সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছিল। এসব ব্যবসায়ী তখন ফুলেফেঁপে উঠেছিলেন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তারা প্রায় সবাই রাতারাতি আওয়ামী লীগ হয়ে যান। হাওয়া ভবনের সম্পৃক্ততা থাকার অভিযোগে প্রয়াত সৈয়দ আশরাফ যে প্রতিষ্ঠানকে ফ্লাইওভার নির্মাণের অনুমোদন দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন; ভোজবাজির মতো সেই ফ্লাইওভার অনুমোদন পান হাওয়া ভবন ঘনিষ্ঠ সেই ব্যবসায়ী। শুধু তাই নয়, রাজকন্যার সঙ্গে অর্ধেক রাজত্বের মতো পায় পাওয়ার প্ল্যান্ট, আরও নানা ব্যবসা। তারা এখন কী করছেন? একসঙ্গে অনেক ব্যাংকের মালিকানা পাওয়া প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগ কোথায়? দেশে না বিদেশে? খবর কে রাখে। অনেক ব্যবসায়ী গ্রুপ এখন দিনে আওয়ামী লীগের সমর্থক সেজে পাঁচতারকা হোটেলে মন্ত্রীদের সঙ্গে ফটোসেশন করছেন। রাতে বিএনপির প্রবাসী যুবরাজের জন্য নজরানা পাঠাচ্ছেন। এমন অভিযোগ বিভিন্ন আলোচনাতেই শোনা যায়। গার্মেন্টের নামে ওভার ইন ভয়েসিং করে হাজার কোটি পাচার করে যারা কোটি টাকা অনুদানের চেক নিয়ে গদগদ করতে করতে সরকারের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হচ্ছেন, গভীর রাতে তাদের গোপন ফোনে দূর দেশে কার সঙ্গে কথা হয়? আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়ে বিএনপির মনোরঞ্জনে ব্যস্ত ব্যবসায়ীদের খবর কি সরকার জানে নাব্যবসায়ীদের একটি অংশ এখন দুই নৌকায় পা দিয়ে চলছেন। জ্বালানি সংকটে রপ্তানি বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বলে আর্তনাদ করতে করতে বিএনপিকে সচল রাখার জ্বালানিতে সরবরাহ করছেন বেশ কিছু ব্যবসায়ী। এদের সম্পর্কে খোঁজখবর কি নেওয়া হচ্ছে? সরকারকে নয় বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানাতে যারামানি ইজ নো প্রবলেম তত্ত্ব আবার রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করছে তারা রাষ্ট্র এবং জনগণের জন্য ক্ষতিকর।  ধ্বংসের উন্মত্ত রাজনীতিতে অবৈধ টাকার অবাধ প্রবাহ বন্ধ না করলে সামনে পরিস্থিতি সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে যেতে বাধ্য।



মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন