ইনসাইড বাংলাদেশ

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি: উভয় সংকটে সরকার

প্রকাশ: ০৫:০০ পিএম, ০৬ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি: উভয় সংকটে সরকার

শেষ পর্যন্ত আইএমএফের পরামর্শে জ্বালানি তেলের দাম বাড়াতেই হলো সরকারকে। গতকাল মধ্যরাতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর এক সংকটময় পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে জনমনে। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির আর কোনো বিকল্প ছিল না। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই এই জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধিতে হতবাক হয়েছে। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলছেন যে, এভাবে একধাপে এত দাম বৃদ্ধি কোনভাবেই কাঙ্খিত না। এটার জন্য সরকারকে বড় রকমের চাপের মধ্যে পড়তে হবে। মধ্যরাতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে রেকর্ড পরিমাণ। ডিজেলের মূল্য যেখানে ছিল ৮০ টাকা, সেখানে করা হয়েছে ১১৪টাকা। কেরোসিনের মূল্য ৮০ টাকা থেকে ১১৪ টাকা করা হয়েছে। পেট্রোলের মূল্য ৮৬ টাকা থেকে ১৩০ টাকা করা হয়েছে। অকটেন করা হয়েছে ৮৯ টাকা থেকে ১৩৫ টাকা। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ আইএমএফ এর কাছ থেকে ঋণ চেয়েছে। আইএমএফ ঋণের যে শর্ত দিয়েছিল, সেই শর্তের একটি বড় বিষয় ছিল যে জ্বালানি খাতে এবং অন্যান্য খাতে ভর্তুকি কমাতে হবে। এই ভর্তুকি কমানোর জন্য সরকার প্রথমে সারের মূল্য বৃদ্ধি করেছে। এখন জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি করলো।

আইএমএফ থেকে ঋণ না পেলে বিশ্বব্যাংক, এডিবি এবং জাইকা থেকেও বাংলাদেশের ঋণ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। সবমিলিয়ে বাংলাদেশ ১০ বিলিয়ন ডলার ঋণের জন্য চেষ্টা করছে। এর মধ্যে আইএমএফ থেকেই বাংলাদেশ ৪.৭৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ পাবে বলে আশা করছে। সরকারি সূত্রগুলো বলছে যে, জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির ফলে আইএমএফ এর ঋণ পাওয়া সহজ হবে। সরকারের অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলার জন্য এই ঋণটা জরুরী। বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সরকারের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, আইএমএফ এর ঋণ সরকারের অর্থনৈতিক চাপ মোকাবিলা, বিশেষ করে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের যে চাপ, সেই চাপ মোকাবিলার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। কিন্তু রিজার্ভের চাপ মোকাবিলা করতে গিয়ে সরকার জনঅসন্তোষের মুখে পড়েছে বলেও মনে করা হচ্ছে। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পরই সাধারণ মানুষের মধ্যে এ নিয়ে তীব্র নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিশেষ করে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে যে ঘটনাগুলো ঘটবে, তাতে ভয়াবহভাবে সংকটে পড়বে সাধারণ মানুষ বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির সাথে সাথেই অবধারিতভাবে গণপরিবহনের ভাড়ার বৃদ্ধি ঘটবে এই ভাড়া বৃদ্ধির কারণে বাজারে দ্রব্যমূল্য আরেক দফা বাড়বে।

এমনি দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ে মানুষের মধ্যে নাভিশ্বাস অবস্থা বিরাজ করছে। তারপরে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পুরো দ্রব্যমূল্য সাধারণ মানুষের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। এর ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে অসন্তোষ বাড়বে বলে অনেকে মনে করছেন। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও নির্বাচনের আগে জ্বালানি তেলের এভাবে মূল্যবৃদ্ধিতে হতাশা প্রকাশ করেছেন। তবে তারা কেউই আনুষ্ঠানিকভাবে এ নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে আওয়ামী লীগের অন্তত দুইজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেছেন, এভাবে মূল্যবৃদ্ধির না করলেও পারতো। আস্তে-ধীরে মূল্যবৃদ্ধি করলে এটি সরকারের জন্য এত চাপের সৃষ্টি করতো না। কিন্তু সরকার জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে উভয় সংকটের মধ্যে পড়েছে। একদিকে বর্তমানে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এবং অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক এবং এডিবির ঋণের বিকল্প নেই, অন্যদিকে এই ভর্তুকি কমাতে গিয়ে সরকারের জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। এই উভয় সংকটের মধ্যে সরকার আপাতত অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলাকেই অগ্রাধিকার দিয়েছে বলে জানা গেছে। সামনে এই সংকট মোকাবিলায় সরকার কি করে সেটাই দেখার বিষয়। 

জ্বালানি তেল   মূল্যবৃদ্ধি   সরকার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

তুরাগে রিকশা গ্যারেজে বিস্ফোরণ: মারা গেলেন দগ্ধ ৮ জনই

প্রকাশ: ১১:০০ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail তুরাগে রিকশা গ্যারেজে বিস্ফোরণ: মারা গেলেন দগ্ধ ৮ জনই

রাজধানীর তুরাগের রাজাবাড়ী এলাকায় একটি রিকশার গ্যারেজে কেমিক্যাল বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আরও একজন মারা গেছেন। এনিয়ে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ ৮ জনেরই মৃত্যু হলো।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) রাত ১০টা পঞ্চাশ মিনিটের দিকে শেখ হাসিনার জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মো. শাহিন (২৬)। 

শেখ হাসিনার জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. এস এম আইউব হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, উত্তরা তুরাগে রিকশার গ্যারেজে বিস্ফোরণের দগ্ধ শাহিন গতরাতে মারা গেছেন। আমাদের এখানে দগ্ধ হয়ে ৮ জনই এসেছিলেন। দগ্ধ ৮ জনই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেলেন। শাহিনের শরীরের ৫০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।

উল্লেখ্য, শনিবার (০৬ আগস্ট) দুপুরে তুরাগ থানার রাজাবাড়ী এলাকায় রিকশার গ্যারেজে কেমিক্যাল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় আটজন দগ্ধ হন। পরে তাদের উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। 

তুরাগ   গ্যারেজ   বিস্ফোরণ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

তারেক মাসুদ মিশুক মুনীরের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশ: ১০:১১ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail তারেক মাসুদ মিশুক মুনীরের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

আজ (১৩ আগস্ট) তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরের ১১তম মৃত্যুবার্ষিকী। ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট  ‘কাগজের ফুল’ এর  শুটিং লোকেশন দেখে ঢাকায় ফেরার পথে মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার জোকা নামক স্থানে বিপরীতমুখী চুয়াডাঙ্গা এক্সপ্রেসের একটি বাসের সঙ্গে তারেক মাসুদ ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব মিশুক মুনীরকে বহনকারী মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তারেক মাসুদ ও মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন। 

তার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার জন্মভূমি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার ভাঙ্গা পৌরসভার নূরপুর মহল্লায় তার গ্রামের বাড়িতে তারেক মাসুদ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ৯টায় তারেক মাসুদের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ১০টায় বাড়ির আঙিনায় স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। এসব অনুষ্ঠানে ঢাকার শর্ট ফিল্ম ফোরাম, ফরিদপুরের তারেক মাসুদ ফিল্ম সোসাইটিসহ ভাঙ্গার বিভিন্ন সামাজিক ও সংস্কৃতিক সংগঠন অংশগ্রহণ করবে।

তারেক মাসুদ ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক ও ভাঙ্গা কেএম কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মোসায়েদ হোসেন ঢালী বলেন, পুষ্পস্তবক অর্পণের পর সমাধি চত্বরে তারেক মাসুদের জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। এসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন তারেক মাসুদের মা নূরুন্নাহার মাসুদ ও স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ।

ফরিদপুর তারেক মাসুদ ফিল্ম সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক এ এইচ এম মেহেদী বলেন, ফরিদপুরের কৃতি সন্তান খ্যাতিমান চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিকেল ৩টায় শহরের কমলাপুরস্থ রাইট ট্র্যাক স্কুলে এক স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। আলোচনা সভা শেষে মাটির ময়না, রানওয়েসহ তারেক মাসুদের একাধিক চলচ্চিত্রের প্রদর্শনী হবে। এরপর তারেক মাসুদের ওপর নির্মিত প্রসূন রহমানের ফেলা নামের ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হবে।

তারেক মাসুদ ভাঙ্গার নূরপুর গ্রামের মসিউর রহমান মাসুদ-নূরুন্নাহার দম্পতির ছেলে। তার বাবা ভাঙ্গা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ছিলেন। পাঁচ ভাই-বোনের মধ্যে তিনিই (তারেক) সবার বড়।

শৈশবে স্থানীয় একটি মাদরাসায় কিছু দিন লেখাপড়া করেছেন তারেক মাসুদ। এরপর তিনি ভাঙ্গা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষে ঢাকায় চলে যান। সেখানে নটরডেম কলেজ ও আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজে পড়াশোনা শেষে পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেন।



তারেক মাসুদ   মিশুক মুনীর  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চা শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

প্রকাশ: ০৯:১৩ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে চা শ্রমিকদের অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট

দৈনিক মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে আজ শনিবার (১৩ আগস্ট) থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন। দৈনিক মজুরি ১২০ থেকে বাড়িয়ে করে ৩০০ টাকা করার দাবিতে তাদের এই ধর্মঘট। দেশের ১৬৭ টি চা বাগানের মত মৌলভীবাজারের ৯২টি চা বাগানের শ্রমিকরা অংশ নিচ্ছে এ ধর্মঘটে।

শ্রীমঙ্গল উপজেলার ফিনলে টি কোম্পানি, সাতগাঁও টি, নাহার, এম আর খান, ইস্পাহানি, মির্জাপুর, জঙ্গল বাড়ি, মাজদিহি চা বাগান, মৌলভীবাজার সদর উপজেলার হামিদিয়া, প্রেমনগর, মৌলভী চা বাগান, কমলগঞ্জ উপজেলার কুরমা, চাম্পারায়, ফুলবাড়ি ও নুরজাহান, ভাড়াউড়া চা বাগানসহ রাজনগর, কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখার বিভিন্ন চা বাগানে চতুর্থ দিনের মতো শুক্রবার (১২ আগস্ট) সকাল ৯টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত ২ ঘণ্টা কর্মবিরতি, প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে চা শ্রমিকরা।

চা শ্রমিকরা জানান, তাদের হাঁড়ভাঙ্গা খাটুনিতে প্রতি বছর চা শিল্পে রেকর্ড চা উৎপাদন হচ্ছে। ২০২১ সালে দেশের ইতিহাসে চায়ের রেকর্ড পরিমাণ উৎপাদন ৯৬ মিলিয়ন কেজি চা হয়েছে। কিন্তু তাদের ভাগ্যের উন্নয়ন আজও হয়নি। চা শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানোর দুটি চুক্তি বাস্তবায়ন করা হলেও বারবার মার খাচ্ছেন চা শ্রমিকরা।

দেশের অন্যতম বৃহৎ চা শিল্পের সঙ্গে জড়িত প্রায় দেড় লক্ষাধিক চা শ্রমিকদের মজুরি দৈনিক ১২০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিতে গত ৯ আগস্ট মঙ্গলবার থেকে মৌলভীবাজার জেলায় অবস্থিত ৯২টি চা বাগানসহ দেশের ১৬৭টি চা বাগানে কর্ম বিরতি পালন করে চা শ্রমিকরা। তাদের মত দাবি না মানায় অনির্দিষ্টকালের জন্য পূর্ণদিবস ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে চা শ্রমিকরা।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের বালিশিরা ভ্যালির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক বিজয় হাজরা বলেন, বর্তমান সময়ে বাজারে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি কারণে আমাদের চা-শ্রমিকরা দৈনিক ১২০ টাকা মজুরি দিয়ে অনেক কষ্টে দিনযাপন করছেন। প্রতিটি পরিবারে খরচ বেড়েছে। আমরা একাধিক সময়ে বাগান মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করছি। চা শ্রমিক ইউনিয়ন ও বাগান মালিকদের দ্বিপাক্ষিক চুক্তি অনুযায়ী মজুরি বাড়ানোর করার কথা থাকলেও মালিকরা চুক্তি ভঙ্গ করছেন। চা শ্রমিকদের মজুরি বাড়ানোর এ দাবি দীর্ঘদিনের। প্রতি বছর মজুরি বাড়ানোর কথা থাকলেও গত ৩ বছর ধরে নানা টালবাহানা করে মজুরি বাড়ানো হচ্ছে না। এতে করে চা শ্রমিকদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। তাই বাধ্য হয়ে আমরা কঠোর আন্দোলনের ডাক দিয়েছি।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল জানান, আমরা প্রায় ৫ দিন ধরে ২ ঘণ্টার ধর্মঘট দিয়ে চেয়েছিলাম যাতে সহজে আমাদের দাবিগুলো পূরণ হয়ে যায়। কিন্তু হয়নি। তাই আমরা বাধ্য হয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি- আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।

মজুরি   শ্রমিক   অনির্দিষ্টকাল   ধর্মঘট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

রাতের আঁধারে পাঁচ হাজার গাছ কাটল দুর্বৃত্তরা

প্রকাশ: ০৮:৫৬ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail রাতের আঁধারে পাঁচ হাজার গাছ কাটল দুর্বৃত্তরা

রাতের আঁধারে এক প্রবাসীর বাগানের প্রায় পাঁচ হাজার গাছ কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে পঞ্চগড় সদর উপজেলায়। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে প্রবাসী পরিবার। 

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) রাতের কোনো এক সময় পঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলারহাট ইউনিয়নের দক্ষিণ ভাটিয়া পাড়া এলাকায় সিদ্দিকী টি স্টেটে এ ঘটনা ঘটে।  

জানা গেছে, আমেরিকা প্রবাসী মিজানুর রহমান সিদ্দিকী জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার তেলিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে আমেরিকায় বসবাস করছেন। জেলার চাকলাহাটের ভাটিয়াপাড়া গ্রামে ২২ একর জমিতে গড়ে তোলেন চা বাগান। টি ট্যুরিজম গড়ার লক্ষ্যে চা বাগানেই রোপণ করেছেন বিদেশি ফলের গাছসহ বিভিন্ন গাছ। এসবের গাছের মধ্যে রয়েছে আম, নারকেল, পেঁয়ারা, পেঁপে ও সুপারি। বাগানে কর্মসংস্থান হয়েছে প্রায় ৬০ জন নারী-পুরুষের।  

অন্যান্য দিনের মতো শুক্রবার সকালে বাগানে চাপাতা তুলতে গিয়ে চমকে ওঠেন কর্মচারীরা। রাতের আঁধারে পেঁপে, সুপারি, নারকেল ও মেহগনির প্রায় ৫ হাজার গাছ কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা।  

বাগানের ম্যানেজার আনিছুর রহমান আনিছ বলেন, শুক্রবার সকালে শ্রমিকরা চা বাগানে কাজ করতে গিয়ে পেঁপে, সুপারি ও মেহগনির গাছ কাটা অবস্থায় দেখতে পায়। খবর পেয়ে বাগানে গিয়ে দেখি, কয়েক হাজার গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবি জানাচ্ছি।

বাগানের মালিক মিজানুর রহমান সিদ্দিকী আমেরিকা থেকে জানান, দীর্ঘ ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে বিদেশে থেকে যা আয় করছি, তা দিয়ে চাকলারহাট এলাকায় বাগানটি গড়ে তুলেছি। আমার বাগানটাই একমাত্র সম্পদ ও স্বপ্ন। আমার হাতে গড়া সেই বাগানের প্রায় ৫ হাজার পেঁপে, নারকেল, সুপারি ও মেহগনির গাছ রাতের আঁধারে কে বা কারা কেটে ফেলেছে। এমন ক্ষতি হওয়ায় আমি দিশেহারা হয়ে পড়েছি। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার ও জড়িতদের শাস্তি দাবি করছি।

এদিকে খবর পেয়ে বিকেলে পঞ্চগড়ের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী, জেলা পরিষদ প্রশাসক আনোয়ার সাদাত সম্রাট এবং সদর থানার ওসি আব্দুল লতিফ মিয়াসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ক্ষতিগ্রস্ত বাগানটি পরিদর্শন করেছেন।

পরিদর্শন শেষে জেলা প্রশাসক আনোয়ার সাদাত সম্রাট বলেন, একজন প্রবাসী বিদেশে থেকে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে এখানে একটি বাগান গড়ে তুলেছেন। কিন্তু হঠাৎ ওই প্রবাসীর বাগানের কয়েক হাজার গাছ কেটে ফেলা হয়েছে। ঘটনাটি দুঃখজনক। প্রশাসন এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে জড়িতদের বের করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসবে এমনটাই আশা করছি।

পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিয়া বলেন, আমরা সরেজমিনে প্রবাসীর বাগানটি পরিদর্শন করেছি। যারা বাগানের গাছ কেটেছেন, তারা একটি অমানবিক কাজ করেছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় যেই জড়িত থাকুক না কেন তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।  



পঞ্চগড়   গাছ কাটা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি, ২২ জেলে উদ্ধার

প্রকাশ: ০৮:৪০ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি, ২২ জেলে উদ্ধার

কক্সবাজারে উত্তাল ঢেউয়ের তোড়ে টিকতে না পেরে মাছ ধরার একটি ট্রলার ডুবে যায়। পরে ট্রলারের ২২ জেলেকে জীবিত উদ্ধার করে স্থানীয় জেলেরা। 

শুক্রবার (১২ আগস্ট) বঙ্গোপসাগরের নাজিরারটেক পয়েন্টে এ ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটে।

এফবি আল্লাহর দান নামে ট্রলারটির মালিক মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ি সাইরার ডেইল এলাকা শের উল্লাহ। জাল, তেল ও মালামালসহ ট্রলারটির মূল্য প্রায় দেড় কোটি টাকা বলে জানিয়েছেন ট্রলার মালিকের ছেলে এজাজুল হক (১৮)। ট্রলারটি ডুবে যাওয়ার সময় এজাজুল হক ট্রলারে ছিলেন।

উদ্ধার হওয়া জেলেরা হলেন- এজাজুল হক, নাছির উদ্দিন, রেজাউল, জয়নাল,আব্দুল আজিজ, নুর, নুরনবী, বাদশা, ছোটন, আজিজ, রুহুল কাদের, জাহাঙ্গীর, নেছার, শাহাবউদ্দিন, নুর হোসেন, বশর, রবিউল, কালু, কোরবান আলী ও জাবের। বাকি দুইজনের নাম জানা যায়নি। জেলেরা সবাই মহেশখালির মাতারবাড়ি এলাকার।

নাজিরারটেক উপকূলে আসার পর এজাজুল হক বলেন, ট্রলারটি দেড় কোটি টাকায় তৈরি করা হয়েছে। ২২ জেলেসহ শুক্রবার দুপুর ২টায় নাজিরারটেক উপকূল থেকে মাছ ধরার জন্য সাগরের উদ্দেশে রওনা হয়েছিল। তেল, খাদ্য সামগ্রীসহ দুই লাখ টাকার মালামাল তোলা হয়। কিন্তু নাজিরারটেক পয়েন্টে পৌঁছাতেই ট্রলারটি বালিতে আটকা পড়ে। এরপর ঢেউয়ের আঘাতে ট্রলারটি উল্টে যায়।

ট্রলারটি উল্টে ১১ জেলে পানিতে পড়ে যায় আর বাকিরা ট্রলারটির নানা অংশ ধরে ওপরে ভাসতে থাকে। পরে স্থানীয় জেলেরা ৪টি ট্রলার নিয়ে এগিয়ে এসে সবাইকে উদ্ধার করে।

বেঁচে ফেরা জেলে কোরবান বলেন, ট্রলারটি উল্টে যাওয়ার পর প্রথমে আমি পানিতে পড়ে যাই। পরে সাঁতার কেটে উপকূলে ওঠার চেষ্টা করি। কিন্তু উপকূল অনেক দূরে ছিল। এক পর্যায়ে মনে করেছিলাম পানিতে ডুবে মারা যাব। কিন্তু আল্লাহর রহমতে অন্য জেলেরা এসে উদ্ধার করেছে।

নাজিরারটেক মাঝিমাল্লা সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক খালেদ মোশারফ বলেন, ট্রলারটি ২২ জন জেলেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। ট্রলারটিও উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। বেশ কয়েক ঘণ্টা চেষ্টার পরও উদ্ধার করতে পারছি না ভাটার কারণে। জোয়ার এলে ৪টি ট্রলারের সাহায্য ডুবে যাওয়া ট্রলারটি টেনে উপকূলের দিকে নিয়ে যাওয়া হবে।



বঙ্গোপসাগর   ট্রলার ডুবি   কক্সবাজার  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন