ইনসাইড গ্রাউন্ড

কাইয়া-রাজার ভরে লড়ছে জিম্বাবুয়ে

প্রকাশ: ০৭:৩২ পিএম, ০৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail কাইয়া-রাজার ভরে লড়ছে জিম্বাবুয়ে।

মাধেভেরের রান আউটের পর জিম্বাবুয়ের ইনিংস এগিয়ে নিচ্ছেন ইনোসেন্ট কাইয়া ও সিকান্দার রাজা। ২৫.৩ ওভারে দলের রান স্পর্শ করেছেন ১৩৩।

এদিকে, ক্যারিয়ারের চতুর্থ ওয়ানডেতে দ্বিতীয় ফিফটির দেখা পেলেন ইনোসেন্ট কাইয়া। প্রথম ওভারে উইকেট হারানোর পর ক্রিজে গিয়ে দারুণ কিছু শট খেলা ব্যাটসম্যান ফিফটি পূর্ণ করলেন ৭ চারে ৬৬ বল খেলে।

এর আগে মেদভেরে আর কাইয়ার জুটি ভেংগে যায় রান আউটের মাধ্যমে।

দৌড়ে রান নেয়ার ক্রিজের অপর প্রান্তে পৌছাতে পারলেন না মেদভেরে। বদলি ফিল্ডার তাইজুল ইসলাম বল প্রথমে ধরতে না পারলেও সঙ্গে সঙ্গে হাতে নিয়ে থ্রো করলেন। উইকেট ভেঙে দিলেন বোলার মেহেদি হাসান মিরাজ।

মেদভেরে আর কায়ার জুটিটা থিতু হয়ে গিয়েছিল। ৬৮ বলে ৫৬ রানের এই জুটিটি ভাঙলো রানআউটে। ১৪তম ওভারে এসে ৬২ রানে ৩ উইকেট হারালো জিম্বাবুয়ে।

এর আগে ইনিংসের প্রথম ওভারেই উইকেটে আঘাত হানলেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। কাটার মাস্টারকে কাট করতে গিয়ে স্টাম্পে বল টেনে আনলেন জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক রেগিস চাকাভা। ২ রান করেই ফিরলেন বোল্ড হয়ে।

এরপরের ওভারে বল হাতে নিয়ে উইকেট তুলে নিলেন শরিফুল ইসলামও। এবার তারিসাই মুসাকান্দা কভারে বল আকাশে তুলে দিয়ে হলেন মোসাদ্দেক হোসেনের সহজ ক্যাচ।

এর আগে, তামিম ইকবাল, লিটন দাস, এনামুল হক বিজয়ের পর মুশফিকুর রহিম- টপ অর্ডারের চার ব্যাটারই ফিফটি করলেন। তাতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ২ উইকেটেই ৩০৩ রানের বড় সংগ্রহ পেলো বাংলাদেশ।

হারারেতে টসের সময় জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক রেগিস চাকাভা জানিয়েছেন, শুরুর দিকে উইকেটের সাহায্য পেতে পারেন বোলাররা। যে কারণে টস জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জিম্বাবুয়ে।


বাংলাদেশ   ক্রিকেট  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বাংলাদেশের পর এবার ভারতকে হারানোর হুমকি জিম্বাবুয়ের

প্রকাশ: ০৪:৩৩ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail বাংলাদেশের পর এবার ভারতকে হারানোর হুমকি জিম্বাবুয়ের

সিরিজ জয়ের আশা নিয়ে সফরকারি বাংলাদেশ দলকে নাকানি-চুবানি খাইয়েছে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে। টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হারানোর পর ওয়ানডে সিরিজেও দাপুটভাবে ২-১ ব্যবধানেভ জিতেছে জিম্বাবুইয়ানরা।

দুই ফরম্যাটেই বাংলাদেশকে হারিয়ে সিরিজ জেতায় আত্মবিশ্বাস তুঙ্গে রয়েছে জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটারদের। সামনে তাদের প্রতিপক্ষ ভারত। তাই ঘরের মাঠে ভারতকেও সিরিজ হারানোর হুমকি দিয়ে রাখলেন স্বাগতিক জিম্বাবুয়ে ব্যাটার ইনোসেন্ট কাইয়া। জানালেন, ভারতের বিপক্ষেও আগ্রাসী ক্রিকেট খেলতে চান তারা। বাংলাদেশের পর ভারতকেও ২-১ ব্যবধানে সিরিজ হারাবেন বলে দাবি করেছেন ইনোসেন্ট কাইয়া।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে বর্তমানে জিম্বাবুয়েতে রয়েছে ভারতীয় দল। কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন ভিভিএস লক্ষ্মণ।

তিনটি ওয়ান ডে ম্যাচের সিরিজটি শুরু হবে ১৮ অগস্ট। লোকেশ রাহুল এবং স্পিনার কুলদীপ যাদব রোববার রওনা হয়েছেন। শিখর ধাওয়ানসহ বাকি ক্রিকেটাররা আগেই পৌঁছে গিয়েছেন। হারারেতে পৌঁছনোর কিছুক্ষণ পরেই আক্রমণাত্মক ক্রিকেটার খেলার হুঙ্কার দিলেন ইনোসেন্ট কাইয়া।

শুধু ব্যাটারই নন, বল হাতে লেগ স্পিনও করতে পারেন ওপেনার কাইয়া। জিম্বাবুয়ের হয়ে এখন পর্যন্ত খেলেছেন ৬টি এক দিনের ম্যাচ। আন্তর্জাতিক টি-২০ খেলেছেন আটটি টি। শিখর ধাওয়ানদের হুঁশিয়ারি দিলেন ক্রিকেট অঙ্গনে পা ফেলা তরুণ এই ক্রিকেটার। কাইয়া বলেন, ‘আমরা ২-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতব। ভারতকে হারাতে পারব বলেই মনে হচ্ছে। সিরিজের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হতে চাই আমি। একাধিক সেঞ্চুরি করতে চাই। এই সিরিজে আমার পরিকল্পনা খুব সাধারণ। নিজের লক্ষ্য ঠিক করে নিয়েছি।’

বাংলাদেশকে একদিনের এবং টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ব্যবধানে হারিয়েছে জিম্বাবুয়ে। ২০১৫ সালে আয়ারল্যান্ডকে ২-১ ব্যবধানে হারানোর পর এই প্রথম দেশের মাঠে কোনও সিরিজ জিতেছে আফ্রিকার দেশটি। সিরিজে বাংলাদেশের বিপক্ষে একটি সেঞ্চুরিও করেন তিনি। প্রথম ওয়ানডেতে খেলেন ১১০ রানের ইনিংস। পরের দুই ম্যাচের একটিতে করেন ৭ এবং অন্যটিতে করেন ১০ রান।

আত্মবিশ্বাসী কাইয়া মনে করছেন ভারত শক্তিশালী দল হলেও হারানো অসম্ভব নয়। তিনি বলেন, ‘এটা শুধু ভাল বোলিং, ব্যাটিং বা ফিল্ডিং করার বিষয় নয়। এটা মানসিকতার ব্যাপার। কোচ ডেভ হটন আমাদের সবসময় ইতিবাচক ক্রিকেট খেলার কথা বলেন। আমরা ঠিক সেটাই করছি এখন। আমরা এখন শট খেলতে একটুও ভয় পাই না। মানসিকতার পরিবর্তন আমাদের খেলাও বদলে দিয়েছে। তাই এখন জয় পাওয়া আমাদের জন্য খুব বড় বিষয় নয়।’

উল্লেখ্য, ছয় বছর পর জিম্বাবুয়ে সফরে গেলো ভারতীয় ক্রিকেট দল। ২০০১ সালের পর জিম্বাবুয়ের কাছে কখনও হারেনি ভারত। ২০১৩, ২০১৫ এবং ২০১৬ সালে একদিনের সিরিজের সব ম্যাচেই জয় পায় ভারত। এ ছাড়াও দু’টি টি-টোয়েন্টি সিরিজ এবং একটি টেস্ট ম্যাচও জিতেছে ভারতীয়রা।


জিম্বাবুয়ে   ভারত   সিরিজ   বাংলাদেশ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করলেন সাকিব-তামিমরা

প্রকাশ: ০৩:৫৬ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করলেন সাকিব-তামিমরা

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে পরিকল্পিত ও নির্মমভাবে হত্যা করা হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। এরপর থেকে প্রতি বছর দিনটিকে পালন করা হয় জাতীয় শোক দিবস হিসেবে। দেশজুড়ে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে গভীওর শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হয় স্বাধীনতার স্থপতি শেখ মুজিবকে ও তার শহীদ পরিবারকে। 

দেশব্যাপী নানা কর্মসূচির মাধ্যমে গোটা দেশ স্মরণ করছে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারকে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও জাতীয় ক্রিকেট দলের ক্রিকেটাররাও ব্যতিক্রম নন। দুই অধিনায়ক সাকিব আল হাসান আর তামিম ইকবাল, সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম আর অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজ বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজেদের ভেরিফাইড পেজ থেকে বার্তা দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে।

সাকিব আল হাসানের ফেসবুক পাতায় বলা হয়েছে, ‘এই দিনে পৃথিবী হারিয়েছে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালিকে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই দেশের মানুষের জন্য নিজের জীবন বিসর্জন দিয়েছিলেন এবং নিশ্চিত করেছিলেন যেন আমরা সবাই সগর্বে বলতে পারি যে এই দেশটি আমার। জাতীয় শোক দিবসে সমগ্র জাতির সাথে আমরাও সমবেদনা প্রকাশ করছি।’

তামিম ইকবাল বলেছেন, ‘বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় স্মরণ করছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ই আগস্টের অন্যান্য শহীদদের।’

মুশফিকের ভাষায়, ‘জাতির পিতা আমাদের জন্য যা করেছেন, তা আমরা কখনো ভুলব না, আমরা শোকাহত।’ এরপর মিরাজ লিখেছেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মিশে আছেন আমাদের অনুভূতি ও অন্তরাত্মায়। জাতীয় শোক দিবসে এই মহান নেতার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা। বাঙালির মৃত্যুঞ্জয়ী চেতনায় বেঁচে আছেন তিনি, এবং বেঁচে রবেন...’

এদিকে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচী হাতে নিয়েছে বিসিবি। জানা যায়, শোক দিবস উপলক্ষ্যে মিরপুর স্টেডিয়ামে ৪, ০০০ দুস্থদের জন্য আয়োজন করা হচ্ছে।


বিসিবি   সাকিব আল হাসান   তামিম ইকবাল   বন্ধবন্ধু   শোক দিবস   শোক বার্তা  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

এমবাপেকে সহ্যই করতে পারছেননা নেইমার!

প্রকাশ: ০৩:২৫ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail এমবাপেকে সহ্যই করতে পারছেনা নেইমার!

গত দলবলের মৌসুমে প্রায়ন রিলা মাদ্রিদে যোগ দিয়েই ফেলেছিলেন কিলিয়ান এমবাপে। তাকে দলে রাখতে বেশ বড়-সর অফার দেয় পিএসজি।  উচ্চ বেতনের পাশাপাশি ক্লাবের নীতি নির্ধারণের অধিকারও তাকে দেইয়া হয়েছে বলে গুঞ্জন রয়েছে ইউরোপীয় সংবাদ মাধ্যমে। চুক্তি নবাইয়নের পরপরই এম্বাপে বিদায় ক্রতে চেয়েছিলেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমারকে, এমন গুঞ্জনও রয়েছে। 

শুধু তাই নয়, পিএসজি সভাপতি নাসের আল খেলাইফিসহ ক্লাবের অন্যান্য কর্তারাও ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। নেইমারের ওপর মোটেও সন্তুষ্ট নন তারা। যে কারণে তাকে বেচে দেওয়ার গুঞ্জনও উঠেছে বেশ। 

অবশেষে সেইসব গুঞ্জনের সত্যতা পাওয়া গেলো নতুন মৌসুমে পিএসজিতে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনাপ্রবাহে। দারুণ ছন্দে রয়েছেন নেইমার। গত মৌসুমের থেকে এই মৌসুমের নেইমারের মাঠের উপস্থিতিতে পার্থক্যটা আকাশ আর পাতাল। মনে হচ্ছেন ম্যাচে একটু বেশিই মনোযোগী এখন, দলের জন্য সর্বস্ব উজাড় করে দেওয়ার চেষ্টাও দেখা যাচ্ছে। ফিটনেসেই এসেছে দারূণ উন্নতি। নিজেকে প্রমাণ করতে বেশ মরিয়া নেইমার। পিএসজি কর্তাদের অনাস্থার জবাবটা দিতে চাচ্ছেন মাঠের পারফর্ম্যান্স দিয়েই। 

পিএসজি যে এমবাপেকে একটু বাড়তি সুবিধা দিচ্ছে তার প্রমাণ তার প্রমাণটা পাওয়া গেল মঁপেলিয়ের বিপক্ষে ম্যাচে। ম্যাচের ২৩ মিনিটে পেনালটী আদায় করে সেটা নিজেই সেটা নেন এমবাপে। কিন্তু মিস করেন তিনি।

ম্যাচের প্রথমার্ধে আরও একটা পেনাল্টি পায় পিএসজি। এইবার বল ছিলো নেইমারে পায়ে। তবে সেই পেনাল্টির আগেও নেইমারের কাছে গিয়ে কিছু একটা বলছিলেন এমবাপে, এমন একটা ভিডিও ছড়িয়ে ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। সকলের দাবি, এমবাপে নেইমারকে পেনাল্টিটা তাকে নিতে দেওয়ার কথাই বলছিলেন। যদিও নেইমার সেই পেনাল্টি নেন, গোল করে ব্যবধানও বাড়িয়ে নেন। 

এই নিয়ে এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কেউই কিছু বলেননি। তবে ইউরোপীয় সংবাদ মাধ্যমে জোর গুঞ্জনটা সমর্থকদের মনেও বসতি গেড়েছে বেশ। নেইমারগিয়াবিআর নামের এক অ্যাকাউন্ট থেকে করা টুইট তিনি লাইক দিয়েছেন, যেখানে সেই অ্যাকাউন্ট দাবি করছিল এমবাপের পেনাল্টি নেওয়ার বিষয়টা চুক্তিতেই আছে। সেই টুইটে লাইক পড়েছে নেইমারের। আরও একটা এমবাপে-বিরোধী টুইটেও লাইক আছে তার।

এদিকে গুঞ্জন ছড়াচ্ছে ড্রেসিং রুমে নেইমার-এমবাপের বাগবিতণ্ডারও। সেসবের সত্যতা না মিললেও নেইমারের দুই টুইটে লাইকই বলে দিচ্ছে, ফরাসি তারকার সঙ্গে সম্পর্কটা ভালো যাচ্ছে না মোটেও।


ফুটবল   পিএসজি   নেইমার   ফ্রান্স  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

রাষ্ট্রীয় সম্মাননা পাচ্ছেন বাবর আজম

প্রকাশ: ০২:৫৮ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail রাষ্ট্রীয় সম্মাননা পাচ্ছেন বাবর আজম

ক্যারিয়ারের দারুণ এক সময় কাটাচ্ছেন পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বাবর আজম। গেল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল খেলা, আসরের শুরুতে প্রথম ম্যাচেই ভারতের বিপক্ষে অধরা বিশ্বকাপ ম্যাচ জয়ের স্বাদ পাইয়ে দিয়েছিলেন তিনি। ব্যক্তিগত পারফর্ম্যান্সেও সমানভাবে আলো কাড়ছেন প্রতিনিয়ত, আছেন আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে।

এসবের মধ্যেই আরও এক ইতিহাস গড়তে চলেছেন তিনি। সর্বকনিষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে বাবর ভূষিত হত্যে যাচ্ছেন পাকিস্তানের তৃতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানে।

স্বাধীনতার ৭৫তম বার্ষিকী পালন করছে পাকিস্তান। সেই উপলক্ষে ফেডারেল সরকার পাকিস্তান দলের অধিনায়ককে ‘সিতারা-ই-ইমতিয়াজ’ সম্মানে ভূষিত করেছে। মাত্র ২৭ বছর বয়সে এই পুরস্কার পেয়ে এই পুরস্কার পাওয়া পাকিস্তানের সর্বকনিষ্ঠ ক্রিকেটারও বনে যাচ্ছেন তিনি।

এর আগের এই রেকর্ডটা ছিল সাবেক অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের। ২০১৮ সালে ৩১ বছর বয়সে এই পুরস্কার পেয়ে এই ইতিহাসটা গড়েছিলেন তিনি।

তবে ক্রিকেটারদের মধ্যে কেবল বাবরই পুরস্কার পাচ্ছেন এমন না। নারী দলের অধিনায়ক বিসমাহ মারুফ পাবেন তমগাহ ইমতিয়াজ। এদিকে প্রাইড অব পারফরম্যান্স পুরস্কার পেতে যাচ্ছেন মাসুদ জান।

পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ড. আরিফ আলভি দেশের ৭৫তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে পাকিস্তানি নাগরিক ও বিদেশি মিলিয়ে ২৫৩ জনকে এই পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে নাগরিকদের শ্রেষ্ঠত্ব ও সাহসিকতার এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। নাম ঘোষণা হলেও এখনই এই পুরস্কার হাতে পাচ্ছেন না বাবররা। ২৩ মার্চ পাকিস্তান দিবসে এ পুরস্কার প্রদান করা হবে ঘোষিতদের।


ক্রিকেট   পাকিস্তান   সম্মাননা   বাবার আজম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

অনুশীলনে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত সাকিব

প্রকাশ: ০১:২৭ পিএম, ১৫ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail অনুশীলনে ক্লান্ত পরিশ্রান্ত সাকিব

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে আলোচনায় বসে চলমান বিতর্কের অবসান করে নেতৃত্বের ভার পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। টেস্টের পর সাকিব বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টিরও অধিনায়ক হয়েছেন। তার নেতৃত্বে এশিয়া কাপ, নিউজিল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলবে বাংলাদেশ। 

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসেবে বিসিবির পছন্দের তালিকায় ছিলেন সাকিব, মাহমুদুল্লাহ, সোহান ও লিটন। লিটন আগেই মানা করে দেওয়ায় তালিকাটা তিনজনে নেমে আসে। সেখানেও আরেক বিপত্তি। বিসিবির প্রথম পছন্দ সাকিব জড়িয়ে যান বেটিং কোম্পানির সঙ্গে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর থেকে ছুটিতে ছিলেন সাকিব। ছিলেন না উইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে ও জিম্বাবুয়ে সফরেও। প্রায় মাস খানেক বিরতির পর রবিবার (১৪ আগস্ট) মাঠে ফেরেন সাকিব। 

মাঠে ফেরার প্রথম দিন জিম-রানিং করেই কাটিয়েছেন টি-টোয়েন্টি দলের নতুন অধিনায়ক। এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে দৌড়ে আসতেই যেন ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছিলেন সাকিব। একটু জিরিয়ে নিয়ে আবার দৌড়েছেন। 

বেশ কদিন বিরতির কারণে শরীরের এমন অবস্থা, তা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। ক্লান্তি কাটিয়ে উঠতেই গতকাল জিম-রানিং করেন প্রায় দুই ঘণ্টা। ধীরে ধীরে ফিরবেন ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলনে। কারণ এশিয়া কাপের আর দেরি নেই। ২৭ আগস্ট থেকে আরব আমিরাতে শুরু হবে এবারের এশিয়া কাপ। ৩০ আগস্ট আফগানিস্তানের বিপক্ষে সাকিবের নেতৃত্বে প্রথম ম্যাচে খেলবে বাংলাদেশ। 



সাকিব আল হাসান   বিসিবি  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন