ইনসাইড গ্রাউন্ড

টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের মূল পর্ব নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ

প্রকাশ: ১২:০৮ এএম, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail

টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে থাইল্যান্ডকে ১১ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপের মূল পর্ব নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল। দাপট দেখিয়ে সবগুলো ম্যাচ জিতেই গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশ।

শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে থাইল্যান্ড নারী দলকে ১১ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ নারী দল। ফাইনালে উঠায় নিশ্চিত হয়েছে আসন্ন টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ।

আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করে ৫ উইকেটে ১১৩ রানের বেশি করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে অল্প পুঁজি নিয়েই দারুণ লড়াই করে থাই নারীদের ১০২ রানে আটকে রাখে তারা। যার ফলে আয়ারল্যান্ডের পর দ্বিতীয় দল হিসেবে বিশ্বকাপে পৌঁছে গেলো নিগার সুলতানা জ্যোতির দল।

১১৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই কঠিন চাপে পড়ে যায় থাইল্যান্ড। ইনিংসের পাঁচ ওভারের মধ্যে মাত্র ১৩ রানে সাজঘরে ফিরে যান তিন ব্যাটার। নিজের প্রথম ওভারে ডাবল উইকেট মেইডেন নেন বাঁহাতি স্পিনার সানজিদা আখতার মেঘলা।

সেখান থেকে প্রতিরোধ গড়ে চতুর্থ উইকেটে ৩২ রান যোগ করেন নারুমল চাওয়াই ও নাত্থাকাম চান্থাম। অধিনায়ক নারুমল ইনিংসের ১৩তম ওভারে দলীয় ৪৫ রানে আউট হওয়ার আগে খেলেন ২৭ বলে ১২ রানের ইনিংস। যা দলের ওপর চাপ বাড়িয়েছে শুধু।

এরপর আহত অবসর হন চানিদা সুত্থিরুয়াং। তার জায়গায় নামা সোনারিন টিপোচকে নিয়ে শেষ চেষ্টা চালান চান্থাম। বিশেষ করে শেষ তিন ওভারে ৫১ রানের চাহিদায় ১৮তম ওভারে ১৬ রান ও ১৯তম ওভারে ১৩ রান নিয়ে খেলা জমানোর আভাস দেন তিনি।

কিন্তু ব্যক্তিগত ফিফটির বাইরে আর কিছুই পাননি চান্থাম। ইনিংসের শেষ ওভারে অভিজ্ঞ অফস্পিনার সালমা খাতুনের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হওয়ার আগে চারটি চার ও তিনটি ছয়ের মারে ৫১ বলে ৬৪ রান করেন ২৬ বছর বয়সী চাত্থাকাম। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ১০২ রান করে থাইল্যান্ড।

বাংলাদেশের পক্ষে ৪ ওভারে মাত্র ১৮ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন সালমা। এছাড়া মেঘলা দুই ও নাহিদা আখতারের শিকার এক উইকেট।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লে'র ছয় ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ২৭ রান করে ফেলে বাংলাদেশ। কিন্তু এরপরই ধীর হতে থাকে রানের গতি। ১৫ ওভার শেষে স্কোর দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ৬৮ রান।

ফারজানা হক পিঙ্কি ১৭ বলে ১১, মুরশিদা খাতুন হ্যাপি ৩৫ বলে ২৬ ও অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি ২৪ বলে ১৭ রান করে আউট হন। ইনিংসের ১৫ ওভার শেষে মাত্র ৬৮ রান হওয়ায় খানিক চাপেই পড়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ।

সেখান থেকে অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার রোমানা আহমেদের ব্যাটে মেলে রক্ষা। যার সুবাদে শেষ পাঁচ ওভারে আর দুই উইকেট হারিয়ে ৪৫ রান যোগ করে বাংলাদেশ। অপরাজিত ইনিংসে রোমানা করেন ২৪ বলে ২৮ রান। এছাড়া শেষ দিকে ক্যামিও ইনিংসে ১০ বলে ১৭ রান করেন ঋতু মণি।

উল্লেখ্য, দশ দলের অংশগ্রহণে হতে যাওয়া ২০২৩ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে স্বাগতিক হিসেবে আগে থেকেই জায়গা নিশ্চিত ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। এছাড়া র‍্যাংকিং বিবেচনায় ভারত, অস্ট্রেলিয়া, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তান পেয়েছে সরাসরি বিশ্বকাপের টিকিট।

আর আরব আমিরাতে চলমান বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব থেকে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেলো বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড। ফাইনালে ওঠার মাধ্যমেই এ দুই দলের বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়ে গেছে। এবার আগামী রোববার রাত ৯টায় চ্যাম্পিয়নশিপের লড়াইয়ে নামবে দুই দল।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

সরাসরি নয়, অনলাইনে জার্সি বিক্রি করতে চায় বিসিবি

প্রকাশ: ০৯:৩৫ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail সরাসরি নয়, অনলাইনে জার্সি বিক্রি করতে চায় বিসিবি

আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অনলাইনে জার্সি বিক্রি করতে চায় বিসিবি। বিসিবির ক্রিকেট অপারেশান্সের চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস এ কথা জানান। তবে এখনো কাউকে বিক্রির অনুমতি দেয় হয়নি বলেও জানিয়েছেন এ বিসিবি কর্তা।

এ প্রসঙ্গে জালাল ইউনুস বলেন, 'বিশ্বকাপের জার্সি নিয়ে আগে আমরা চেষ্টা করেছিলাম। এখন আমাদের মাথায় আছে অনলাইনে বিক্রি করা যায় কিনা আমাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। আমরা এটা চেষ্টা করছি। কিছু আনুষ্ঠানিকতা আছে। খুব সম্ভবত আমরা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে করবো। সেটাই চেষ্টা করছি। কিন্তু কাউকে আমরা বিক্রির অনুমতি দেইনি।'

গত শুক্রবার সাকিব-সোহানদের জার্সি উন্মোচন করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। এবারের জার্সি উন্মোচনে অবশ্য কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছিল না। বিসিবি তাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে একটি ভিডিও প্রকাশের মাধ্যমে বিশ্বকাপের জার্সি উন্মোচন করা হয়।

 অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের জার্সিতে এবার বাংলাদেশের ঐতিহ্য তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। যেখানে দেশের গৌরব জামদানি, সুন্দরবন এবং রয়েল বেঙ্গল টাইগারকে নিদারুণভাবে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে। 


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ   বাংলাদেশ জার্সি  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

সাতক্ষীরায় সাফ চ্যাম্পিয়ন মাসুরা পারভীনকে সংবর্ধনা প্রদান


Thumbnail সাতক্ষীরায় সাফ চ্যাম্পিয়ন মাসুরা পারভীনকে সংবর্ধনা প্রদান

সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন চ্যাম্পিয়নশিপ (সাফ) বিজয়ী বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অন্যতম ডিফেন্ডার মাসুরা পারভীনকে সংবর্ধনা দিয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন।

রবিবার (২ অক্টোবর) সকাল ১১টায় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে উষ্ণ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন, সাতক্ষীরা সদর আসনের সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) সজিব খান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা-তুজ-জোহরা, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি আশরাফজ্জামান আশু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান মুক্তি, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সুমন হোসেন, মাসুরার বাবা রজব আলীসহ সুধীজন।

নারী ফুটবল দলের অন্যতম ডিফেন্ডার মাসুরা পারভীনকে এসময় ফুল ও ক্রেস্ট দিয়ে অভিনন্দন জানান সাতক্ষীরা সদর এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। এরআগে বৃহস্পতিবার ভোরে ছুটিতে বিনেরপোতাস্থ বাড়িতে ফেরেন মাসুরা পারভীন। ঐদিন তিনি শ্যামনগরে ফুটবল খেলতে যান।

এ সময় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সারা জীবনের জীবন্ত ডায়েরি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের কারণে আজ সারা দেশে নারী ফুটবল খেলায় জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে।

সাবিনা ও মাসুরার জন্য সাতক্ষীরাসহ গোটা বাংলাদেশ গর্বিত। সাতক্ষীরার এই দুই কৃতি সন্তানের জন্য নারী ফুটবলে জাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। আমরা তাদের পরিবারের পাশে আছি। তারা গরীব মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্দান। তাদের পরিবারের স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে আমরা সাধ্যমত চেষ্টা করবো।

এসময় তিনি আরও বলেন, বিজয়ী অধিনায়ক সাবিনা খাতুন ও অন্যতম ডিফেন্ডার মাসুরা পারভীনকে নাগরিক সংবর্ধনা দিবে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন। সাফ জয়ী অধিনায়ক সাবিনা খাতুন এখন মালদ্বীপে রয়েছেন। দেশে ফিরলেই দুই ফুটবল তারকাকে দেওয়া হবে নাগরিক সংবর্ধনা। সাতক্ষীরা স্টেডিয়ামে জেলা ক্রীড়া সংস্থা, জেলা ফুটবল এসোসিয়েশনসহ বিভিন্ন সংগঠন যৌথভাবে এ সংবর্ধনার আয়োজন করবে। ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

মাসুরা পারভীন  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে আইসিসির সম্ভাব্য ৫ সেরা ক্রিকেটার

প্রকাশ: ০৯:০০ এএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপে আইসিসির সম্ভাব্য ৫ সেরা ক্রিকেটার

আগামী ১৬ই অক্টোবর থেকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে শুরু হতে চলেছে ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় কার্নিভাল আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। এইবারের প্রতিযোগিতাটি এই জনপ্রিয় ইভেন্টের অষ্টম সংস্করণ। ইতিমধ্যে দুইবার এই ক্ষুদ্রতম ফরম্যাটের বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তুলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অন্যদিকে ভারত, পাকিস্তান, ইংল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা ও অস্ট্রেলিয়া একবার করে এই শিরোপা জয়ের স্বাদ নিতে পেরেছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও নিউজিল্যান্ডের মতো বড় ক্রিকেট খেলা দেশগুলি এখনও এই ট্রফির ছুয়ে দেখা হয়ে উঠেনি।

আসন্ন ২০২২ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য, আইসিসি সম্প্রতি ৫ জন ক্রিকেটার সম্পর্কে ভবিষ্যৎবাণী করেছে যারা আইসিসির মতে এই বিশ্বকাপে তারকা হয়ে উঠতে পারে। দেখাতে পারে অনব্য কিছু পারফরম্যান্স। কিন্তু এই তালিকায় মধ্যে কেবলমাত্র একজন তারকা ভারতীয় খেলোয়াড় জায়গা পেয়েছেন।

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল এইমুহূর্তে ভারতীয় দলের সবচেয়ে ভালো ফর্মে থাকা মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান সূর্যকুমার যাদবকে তাদের এই তালিকায় স্থান দিয়েছেন। এশিয়া কাপের পারফরম্যান্সে বাদে গোটা বছরে ভারতীয় জার্সিতে দুর্দান্ত ছন্দে রয়েছেন তিনি। ভারতের সূর্যকুমার যাদব ছাড়াও অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার, শ্রীলঙ্কার অলরাউন্ডার হাসরাঙ্গা, ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জস বাটলার ও পাকিস্তানের ওপেনার ও উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানকে এই তালিকায় বেছে নেওয়া হয়েছে। 

সূর্যকুমার যাদব এই বছর আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে বিশ্বের দুই নম্বর ব্যাটার হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন। চলতি বছরে অসাধারণ ক্রিকেট খেলে তিনি এখনও অবধি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৭৩২ রান করে ফেলেছেন। চলতি বছরে এখনও কমপক্ষে তিনি ৬টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবেন। তাই আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবে না যদি তিনি বৎসারান্তে ১০০০ রানের গন্ডি অতিক্রম করে যান।

সূর্যকুমার যাদব আরও একটি বড় মাইলফলক ছুঁয়েছেন সম্প্রতি। এর আগে এক ক্যালেন্ডার বর্ষে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে সবচেয়ে বেশি ছক্কা মারার রেকর্ড ছিল পাকিস্তানের তারকা ওপেনার এবং উইকেট রক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানের নামে। তিনি ২০২১ সালে এক ক্যালেন্ডার বর্ষে ৪২ টি টি-টোয়েন্টি ছক্কা মেরেছিলেন। চলতি বছরে সূর্যকুমার যাদব তার চেয়ে পাঁচটি ম্যাচ কম খেলে ইতি মধ্যে ৪৫ টি ছক্কা মেরেছেন এবং এখনো তিন মাসে প্রচুর টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলবেন তিনি।

টি-২০ বিশ্বকাপ   আইসিসি   সেরা ক্রিকেটার  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

থাইল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের

প্রকাশ: ১১:৩৩ এএম, ০১ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail থাইল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের

সিলেটে নারী এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে থাইল্যান্ডকে ৯ উইকেটে হারাল বাংলাদেশ। ৮৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে ১১ ওভার চার বলে এক উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় স্বাগতিকরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ রান আসে ওপেনার শামীমা সুলতানার ব্যাট থেকে।

৮৩ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে থাইল্যান্ডের বোলারদের পাত্তাই দেয়নি বাংলাদেশের ব্যাটাররা। ফারজানা হক পিংকিকে একপাশে দাঁড় করিয়ে থাইল্যান্ডের ওপর ঝড় তোলেন শামীমা সুলতানা। মাত্র ৩০ বল খেলে ৪৯ রান করেন তিনি।

জয় অবধি অবশ্য টিকে থাকতে পারেননি শামীমা। তিনি আউট হওয়ার পর বাকি কাজটুকু সারেন ফারজানা হক ও অধিনায়ক নিগার সুলতানা জ্যোতি। ২৯ বলে ২৬ রান করেন ফারজানা, জ্যোতির ব্যাটে ১১ বলে আসে ১০ রান।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার ফিল্ডিংয়ে নেমে পঞ্চম ওভারে এসে বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দেন সানজিদা আক্তার মেঘলা। তার দুর্দান্ত ডেলেভারিতে নান্নাপাত কুনচারোনকি বোল্ড হন। এর আগে এই ব্যাটার ১২ বল খেলে করেন ৮ রান। পরের ওভারেই দ্বিতীয় সাফল্যও পায় বাংলাদেশ।  

এরপর গড়ে উঠে ৩৮ রানের জুটি। পানিথা মায়াকে শামীমার ক্যাচ বানিয়ে এই জুটি ভাঙেন মেঘলা। এই ব্যাটার ২২ বল খেলে করেন ২৬ রান। এরপর অন্য প্রান্তে ঢাল হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা নাথানকান চান্থামকে ফেরান সালমা খাতুন। কোনো বাউন্ডারি না হাঁকিয়ে ৩৮ বলে ২০ রান করেন চান্থাম।

তার বিদায়ের পর অলআউট হতেও বেশি সময় লাগেনি থাইল্যান্ডের। বাংলাদেশের পক্ষে দুই উইকেট করে নেন নাহিদা, সানজিদা ও সোহেলী। ৩ ওভারে ১ মেডেনসহ ৯ রান দিয়ে তিন উইকেট পান রুমানা আহমেদ।


খেলাধূলা   নারী এশিয়া কাপ   এশিয়া কাপ   থাইল্যান্ড  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড গ্রাউন্ড

বাংলাদেশকে ৮৩ রানের টার্গেট দিল থাইল্যান্ড

প্রকাশ: ১০:৪৬ এএম, ০১ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail বাংলাদেশকে ৮৩ রানের টার্গেট দিল থাইল্যান্ড

নারী এশিয়া কাপে উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশকে ৮৩ রানের টার্গেট দিয়েছে থাইল্যান্ড। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৯ ওভার ৪ বলে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ৮২ রান করে দলটি।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার সকাল ৯টায় শুরু হয় খেলা। ফিল্ডিংয়ে নেমে পঞ্চম ওভারে এসে বাংলাদেশকে সাফল্য এনে দেন সানজিদা আক্তার মেঘলা। তার দুর্দান্ত ডেলেভারিতে নান্নাপাত কুনচারোনকি বোল্ড হন। এর আগে এই ব্যাটার ১২ বল খেলে করেন ৮ রান। পরের ওভারেই দ্বিতীয় সাফল্যও পায় বাংলাদেশ।  

এরপর গড়ে উঠে ৩৮ রানের জুটি। পানিথা মায়াকে শামীমার ক্যাচ বানিয়ে এই জুটি ভাঙেন মেঘলা। এই ব্যাটার ২২ বল খেলে করেন ২৬ রান। এরপর অন্য প্রান্তে ঢাল হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা নাথানকান চান্থামকে ফেরান সালমা খাতুন। কোনো বাউন্ডারি না হাঁকিয়ে ৩৮ বলে ২০ রান করেন চান্থাম।

তার বিদায়ের পর অলআউট হতেও বেশি সময় লাগেনি থাইল্যান্ডের। বাংলাদেশের পক্ষে দুই উইকেট করে নেন নাহিদা, সানজিদা ও সোহেলী। ৩ ওভারে ১ মেডেনসহ ৯ রান দিয়ে তিন উইকেট পান রুমানা আহমেদ।


ক্রিকেট   নারী এশিয়া কাপ   এশিয়া কাপ   বাংলাদেশ   থাইল্যান্ড  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন