ইনসাইড পলিটিক্স

৭১-এর পরাজিতরা শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশ: ০৬:১২ পিএম, ০৬ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail ৭১-এর পরাজিতরা শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, '৭১ এর পরাজিত অপশক্তি দেশে ও দেশের বাইরে জঘন্য মিথ্যাচার করে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। তারা আদর্শিকভাবেও বঙ্গবন্ধু কন্যার সাফল্যের অগ্রযাত্রা ব্যাহত করার অপচেষ্টা করছে। এর সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছে দুর্নীতির দায়ে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত তারেক রহমান এবং যুদ্ধাপরাধীদের পরিবারের সদস্যরা। তাদের প্রবাসে কঠিনভাবে মোকাবেলা করতে হবে। প্রবাসে যে মিথ্যাচার চলছে সেই মিথ্যাচারের উপযুক্ত জবাব দিতে হবে। সঠিক তথ্য তুলে ধরতে হবে।

গতকাল শুক্রবার (৫ আগস্ট) স্থানীয় সময় রাতে যুক্তরাজ্যের লন্ডনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের ৭৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে 'শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামাল: একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও যুব আইকনকে স্মরণ' শিরোনামে বাংলাদেশ হাইকমিশন, লন্ডন আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট যারা সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল, তাদের লক্ষ্য শুধু একজন শেখ মুজিবকে হত্যা করা ছিল না। তাদের লক্ষ্য ছিল মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ যার নেতৃত্বে বিনির্মাণ হয়েছে তাঁকে সপরিবারে হত্যা করে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় হত্যা করা। তারা বঙ্গবন্ধু পরিবারে যারা রাজনীতি করত না তাদেরও নির্মমভাবে হত্যা করেছে। সে ধারাবাহিকতায় তারা ৩ নভেম্বর জেলখানায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করেছে।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালের পরাজিত অপশক্তি এখনো বিনাশ হয়নি। তারা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধুর স্থলাভিষিক্ত মনে করে। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়ন করছেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশকে ফিরিয়ে এনেছেন। সে কারণেই তারা ২০০৪ সালের ২১ আগস্টসহ অন্তত ১৯ বার বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। এখনও তারা বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তাদের সে ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে হবে। দেশে এবং দেশের বাইরে যারা এ ষড়যন্ত্রে লিপ্ত, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।

শ ম রেজাউল করিম আরও বলেন, শেখ হাসিনার সাফল্যে যদি কোন বাধা আসে তাহলে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ হারিয়ে যাবে। ত্রিশ লক্ষ শহীদের স্বপ্নের বাংলাদেশ হারিয়ে যাবে। তা আমরা নিশ্চয়ই হতে দিতে পারি না। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উন্নয়নের কারিগর। শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের শেষ আশ্রয়স্থল। তিনি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। তিনি বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি। তাঁকে এবং বঙ্গবন্ধু পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করতে হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান ফারুক, শহীদ ক্যাপ্টেন শেখ কামালের বন্ধু সাবেক রাষ্ট্রদূত শাহেদ রেজা ও স্থানীয় বাঙালি কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ বক্তব্য প্রদান করেন।

শ ম রেজাউল করিম  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

উন্নয়নের নৌকা এখন শ্রীলঙ্কার পথে: জি এম কাদের

প্রকাশ: ০৯:৪৩ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail উন্নয়নের নৌকা এখন শ্রীলঙ্কার পথে: জি এম কাদের

‘ইউরোপ, আমেরিকার আর সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে ছেড়ে দেওয়া উন্নয়নের নৌকা এখন শ্রীলঙ্কার পথে’ বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের এমপি।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) বিকালে রাজধানীর মিরপুরের চিড়িয়াখানা রোডের ঈদগাহ মাঠে মিরপুর ও শাহ্আলী থানার দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

জি এম কাদের  বলেন, ‘দেশের স্বার্থে কথা বললেই সরকারের কিছু নেতা ষড়যন্ত্র খোঁজে। আমরা যখন বলেছি, দেশ শ্রীলঙ্কার মতো ব্যর্থ হতে চলছে। তখন আমাদের মুর্খ বলেছে। এখন আমাদের প্রশ্ন, দেশে লোডশেডিং কেন? ডলারের দাম এত বেড়েছে কেন? জ্বালানি তেলের দাম এত বেড়েছে কেন?  সারাদিন বিশ্বব্যাংক আর আইএমএফ-কে গালাগাল দিয়ে এখন ঋণের জন্য তাদের পেছনে ঘুরছেন কেন?’

তিনি বলেন, ‘জ্বালানি খাতের দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে হবে। দেশের মানুষ জানতে চায়, প্রতি বছর কত হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি হয়েছে জ্বালানি খাতে। কারা এই দুর্নীতির সাথে জড়িত?  দুর্নীতির সাথে জড়িতদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে। বিচারের মুখোমুখি করতে হবে দুর্নীতিবাজদের।’ 

তিনি বলেন, ‘প্রতিবছর কারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে, তাদের তালিকা জানতে চায় দেশের মানুষ। পাচারকারীদের বিচারের মুখোমুখি করতে হবে। গেল বছর সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশ থেকে ৪ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে। সরকার পাচারকারীদের তথ্য প্রকাশ না করে নিজকেই প্রশ্নবিদ্ধ করছে।’

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বললেই আওয়ামী লীগের কিছু নেতা মনে করেন, তাদের গালাগাল দেওয়া হচ্ছে। অযৌক্তিকভাবে তারা আমাদের গালাগাল দিতে শুরু করেন।’ 

উন্নয়ন   নৌকা   শ্রীলঙ্কা   জি এম কাদের  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

সরকারের অনেক বুদ্ধি, কলাকৌশল জানে: মান্না

প্রকাশ: ০৭:২১ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail সরকারের অনেক বুদ্ধি, কলাকৌশল জানে: মান্না

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, ‘সরকারের অনেক বুদ্ধি। কলাকৌশল জানে। তাদের সরকার থেকে নামানো কঠিন। সরকার তো আর এমনি এমনি যেতে চায় না। 

শুক্রবার (১২ আগস্ট) জাতীয় প্রেসক্লাবে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) ‘জ্বালানি তেলের নজিরবিহীন মূল্যবৃদ্ধি : বহুমাত্রিক প্রভাব এবং বাংলাদেশের গন্তব্য কোন পথে’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন ‘সরকার চলে যাবে এই বিষয়ে মানুষ আর আশাবাদী নয়। সরকার তো আর এমনি এমনি যেতে চায় না। বাঘের পিঠে উঠেছে। তারা বুঝতে পেরেছে যে, নিরপেক্ষ ভোট  দিলে মানসম্মান থাকবে না।’

তিনি বলেন, ‘দিন দিন জমজমাটভাবে মানুষের মধ্যে রাজনীতির বিষয়টি আলোচনা হচ্ছে। আওয়ামী লীগকে দেখতে পারে এমন মানুষ দেখি না। যারা শুধু সুবিধা পায়- তারাই বলে আওয়ামী লীগ আছে। এখন টকশোতে আলোচনা শেষে দেখা হলে আওয়ামী লীগের বক্তারা বলেন, বলা লাগে তাই বলি।’

জাগপা সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধানের সভাপতিত্বে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, জাগপা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ইকবাল হোসেনসহ সংগঠনটির নেতারা বক্তব্য দেন।

মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ‘মন্ত্রীরা বলছেন-  আমরা সংকটে আছি। আইনি পথে ব্যাংকের মাধ্যমে ৭০ হাজার কোটি টাকা আর বেআইনিভাবে ২ লাখ কোটি টাকা বিদেশে চালান হয়। সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয় না। সরকার সেই লোকগুলোকে ধরে না। আবার সংসদে দাঁড়িয়ে বলে, অর্থ পাচারকারীদের তালিকা তাদের কাছে আছে। সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত যখন বলছে, বাংলাদেশ সরকার তাদের কাছে সুইস ব্যাংকের তথ্য চায়নি। তখন তারা কী জবাব দেবে? এখন হাইকোর্টও জানতে চাইছেন সরকার কি আসলেই আবেদন করেছে কি না, যা জনগণও জানতে চায়। 

ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, ‘আলোচনা হচ্ছে বাংলাদেশ কি শ্রীলঙ্কা হচ্ছে? এটা আমাদের কথা নয়, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সূত্র ধরে বিবিসি বলছে, আসলেই আমরা ঝুঁকিতে আছি। আমরা ক্রস পথে আছি। কার কাছে ক্ষমতা ছাড়বে, এ নিয়ে বসে থাকলে শুধু সময় বিলম্ব হবে। গায়ের জোরে এই সরকার দেশ চালাতে পারবে না। কোনো ধাক্কা সামলানোর ক্ষমতা আর তারা রাখে না। এখানে আবেগের নদীতে ভাসা যাবে না।’

সরকার   মান্না  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মেনন, হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশ: ০৬:৪৪ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মেনন, হাসপাতালে ভর্তি

বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) দুপুর ১টায় তাকে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক বলেন, ঢাকা ৮ আসনের সংসদ সদস্য মো. রাশেদ খান মেনন করোনা পজেটিভ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, রাশেদ খান মেনন করোনা পজেটিভ হয়ে হাসপাতালের নতুন ভবনের ১০৫ নম্বর ভিডিপি ক্যাবিনে চিকিৎসাধীন।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

পাচঁ দফা দাবিতে প্রেস ক্লাবের সামনে গণঅধিকার পরিষদের সমাবেশ

প্রকাশ: ০৬:২০ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail পাচঁ দফা দাবিতে প্রেস ক্লাবের সামনে গণঅধিকার পরিষদের সমাবেশ

সারাদেশে লোডশেডিং ও জ্বালানি খাতে অব্যবস্থাপনাসহ ৫ দফা দাবিতে রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ করছে গণঅধিকার পরিষদ। এতে প্রেস ক্লাবের সামনের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে এবং যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) দুপুর ৩টায় সমাবেশ শুরু হলে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে নেতাকর্মীরা মিছিলে নিয়ে ভিড় করেন।

সমাবেশ স্থলে দেখা যায়, গণঅধিকার পরিষদের নেতাকর্মীরা রাস্তার মাঝখানে বসে এবং আশপাশে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করছেন। এতে প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কের একপাশ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে সদরঘাট, যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, মতিঝিল থেকে ছেড়ে আসা গণপরিবহনকে বিকল্প সড়ক ব্যবহার করতে হচ্ছে।

সমাবেশস্থলে উপস্থিত আছেন গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ড. রেজা কিবরিয়া, সদস্য সচিব নুরুল হক নুর, রাশেদ খানসহ গণঅধিকার পরিষদের নেতৃবৃন্দ। 

সংগঠনের ৫ দফা দাবিগুলো হলো, 

১. কেরোসিন, ডিজেল ও পেট্রোলসহ জ্বালানি তেল-গ্যাস এবং সারের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করতে হবে।

২. অনতিবিলম্বে লোডশেডিং বন্ধ, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের দায়মুক্তি আইন বাতিল করে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে নিতে হবে।

৩. চাল, ডাল ও তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল জিনিসপত্রের দাম কমিয়ে নিম্ন আয়ের মানুষের ত্রয় ক্ষমতার মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। 

৪. মিথ্যা ও বানোয়াট মামলায় গ্রেপ্তার সব রাজবন্দী ও ধর্মীয় নেতাদের মুক্তি এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে।

৫. ভোলায় শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচিতে গুলি করে মানুষ হত্যায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে সভা-সমাবেশ, মিছিল-মিটিংয়ের মতো নাগরিকদের সংবিধান স্বীকৃত সকল অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

পাচঁ দফা   দাবি   গণঅধিকার পরিষদ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড পলিটিক্স

হারিকেন ধরা বিএনপিকে হারিকেন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশ: ০৬:১২ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail হারিকেন ধরা বিএনপিকে হারিকেন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না: তথ্যমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, 'মুসলিম লীগের প্রতীক প্রথমে ছিল সাইকেল। পরবর্তীতে প্রতীক করে হারিকেন। কিন্তু হারিকেন দিয়েও বর্তমানে মুসলিম লীগকে খুঁজে পাওয়া যায় না। তেমনি বিএনপি তাদের ধানের শীষ মার্কা বাদ দিয়ে হারিকেন ধরেছে। তাই আমার মনে হয় হারিকেন দিয়ে খুঁজেও বিএনপিকে পাওয়া যাবে না।'

শুক্রবার (১২ আগস্ট) সকালে রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

বর্তমান বিশ্ব প্রেক্ষিত উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘পৃথিবীতে এখন সংকট চলছে। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানি তেলের মূল্য ৭০ থেকে ১০০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সে কারণে বাংলাদেশেও জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে, তবুও অনেক দেশের চেয়ে কম। যারা বিশ্বাস করেন না তারা পদ্মা পার হয়ে পশ্চিমবঙ্গে গেলেই দেখবেন সেখানে ডিজেল লিটার ১১৬ টাকা, আমাদের ১১৪। যখন পৃথিবীতে স্থিতিশীলভাবে দাম কমবে, তখন বাংলাদেশেও মূল্য সমন্বয় করা হবে, কমবে। তেলের এই দাম বৃদ্ধি নিয়ে কারও মাঠ গরম করার সুযোগ নেই। কিন্তু বিএনপিসহ কিছু দল ও প্রতিষ্ঠান জ্বালানি তেলের মূল্য নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।'

বিএনপিকে উদ্দেশ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়, বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে সন্ত্রাসী দেশ হিসেবে প্রমাণ করতে চায়। তারা আরেকটি ১৫ আগস্ট সৃষ্টি করতে চায়। কিন্তু আওয়ামী লীগ একটি বৃহত্তম দল। এই দলের নেতাকর্মীরা বেঁচে থাকতে তাদের এই আশা কোনো দিন পূরণ হবে না।’

শোক দিবসকে সামনে রেখে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, 'বাংলাদেশের স্বাধীনতাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিলো, কারণ বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর পাকিস্তানের সাথে কনফেডারেশন করার, জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত পরিবর্তনের এবং রেডিও, টেলিভিশনসহ সব ক্ষেত্রে পাকিস্তানি ভাবধারা ফিরিয়ে আনার অপচেষ্টা হয়েছিলো। তারপরের ২০ বছরের অচলাবস্থা ভেঙ্গে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে আবার সরকার গঠন করার মধ্য দিয়ে এবং ২০০৮ সালে সরকার গঠন করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে সাড়ে ১৩ বছরে যেভাবে এগিয়ে নিয়ে গেছেন, তার ফলে বাংলাদেশ আজ পৃথিবীর সামনে একটি গর্বিত রাষ্ট্র।'

মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাডভোকেট আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মফিজ উদ্দিন কবিরাজের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব শাহরিয়ার আলম। বিশেষ বক্তা ছিলেন কক্সবাজারের এমপি সাইমুম সারওয়ার কমল, রাজশাহী (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য মো. আয়েন উদ্দিন। বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাবু অনিল কুমার সরকার, সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াদুদ দারা প্রমুখ।


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন