টেক ইনসাইড

পদ্মাসেতুর এনএফটি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে চান আইটি উদ্যোক্তা ত্বহা

প্রকাশ: ১১:১২ এএম, ০৫ জুলাই, ২০২২


Thumbnail পদ্মাসেতুর এনএফটি প্রধানমন্ত্রীকে উপহার দিতে চান আইটি উদ্যোক্তা ত্বহা

স্বাধীনতার ৫০ বছরে নিজস্ব অর্থায়নে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় স্থাপনা 'স্বপ্নের পদ্মা সেতু'। দেশের এই সবচেয়ে বড় অবকাঠামো বহুল কাঙ্ক্ষিত পদ্মা সেতু আগামী ২৫ জুন উদ্বোধন করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে বিশ্ববাসীর কাছে শেখ হাসিনা পদ্মসেতুর মতো দৃষ্টান্ত স্থাপন করে আত্মবিশ্বাস ও দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছেন।

এদিকে ২৫ জুন পদ্মাসেতুর উদ্বোধনের দিন আরও এক নজির গড়ল বাংলাদেশের এক তরুণ আইটি উদ্যোক্তা আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ (ত্বহা)। ২৫ জুন বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টায় ইন্টারনেটের আধুনিক দুনিয়ার থার্ড ওয়েবে লিপিবদ্ধ করলো পদ্মা সেতুর ডিজিটাল স্মারক বা পদ্মাসেতুর এনএফটি। যার ফলে ব্লকচেইন প্রযুক্তির দুনিয়ায় যুক্ত হলো পদ্মা সেতুর সাফল্য গাঁথা।

বিশ্বের বড় বড় দেশ যারা তথ্য -প্রযুক্তিতে এগিয়ে, তারা ইতিমধ্যে ইন্টারনেটের থার্ড ওয়েব নিয়ে কাজ শুরু করেছে। আর পদ্মাসেতুর এনএফটি করে বাংলাদেশও যে পিছিয়ে নেই তারই জানান দিলো বাংলাদেশের তরুণ আইটি উদ্যোক্তা আব্দুল্লাহ আল ফুয়াদ (ত্বহা)। এতে মেটাভার্সের ডিজিটাল দুনিয়ায় পদ্মাসেতুও চিরভাস্বর হয়ে অস্থান পেল।

বাংলাদেশের এই তরুণ উদ্যোক্তা বলেন, বিশ্ব আমরা যে ইন্টারনেট ব্যবহার করছি তা মূলত ইন্টারনেটের দ্বিতীয় স্তর বা সেকেন্ড ওয়েব। তবে বিশ্বে যেসব দেশ ইন্টারনেট দুনিয়ায় এগিয়ে তারা ইন্টারনেটের থার্ড ওয়েব নিয়ে কাজ করছে বা কিছু জিনিস শুরু করে দিয়েছে।

এছাড়া ইন্টারনেটের সেকেন্ড ওয়েব থেকে থার্ড ওয়েব আরও বেশি বিস্তার ও এখানে বাংলাদেশিদের সুযোগ রয়েছে নতুন নতুন জিনিস তৈরি করার। পদ্মাসেতুর এনএফটি ছাড়াও তিনি আর বেশ কিছু থার্ড ওয়েবে আইটি রিলেটেড কাজ করছে বলে জানান তিনি। যা কিনা আরও নতুন চমক হয়ে আসবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা সব সময়ই চেয়েছি প্রযুক্তি দুনিয়ায় পদ্মাসেতুর সাফল্যকে চিরস্মরণীয় করে রাখতে। এরই ফলশ্রুতিতে ২০২২ সনের সঙ্গে মিল রেখে থার্ড ওয়েবে ২০২২টি ডিজিটাল স্মারক লিপিবদ্ধ করেছি। আমরা এই অমূল্য ২০২২টি স্মারককের সর্বপ্রথম স্মারকটি পদ্মাকন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে চাই।

এনএফটি হলো একটি ডিজিটাল মূল্যবান সম্পদ। এনএফটির মূল বিষয়টি হলো এর অমোচনীয়তা অর্থাৎ যা মুছে ফেলা সম্ভব নয়। এজন্যই এট অমূল্য এটি একটি ডিজিটাল স্মারক যার মালিকানা অর্জন করা সম্ভব এবং এটি ব্লকচেইন এ সুরক্ষিত ও সংরক্ষিত। ২০২২টি লিপিবদ্ধ স্মারকই সংরক্ষিত। আর বাড়ানো বা কমানোর উপায় নেই।

পদ্মা সেতু   এনএফটি   উপহার   প্রধানমন্ত্রী   আইটি উদ্যোক্তা   ত্বহা  


মন্তব্য করুন


টেক ইনসাইড

ভয়ংকর নিরাপত্তাত্রুটিতে হোয়াটসঅ্যাপ

প্রকাশ: ০৮:৩৯ এএম, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail ভয়ংকর নিরাপত্তাত্রুটিতে হোয়াটসঅ্যাপ

ভয়ংকর দুটি নিরাপত্তাত্রুটির সন্ধান পাওয়া গেছে হোয়াটসঅ্যাপে। চাইলেই ত্রুটিগুলো কাজে লাগিয়ে সাইবার অপরাধীরা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট দূর থেকে দখলে নিতে পারে। বিষয়টি জানতে পেরে দ্রুত ত্রুটিগুলো দূর করেছে ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সেবাটি। তবে পুরোনো সংস্করণে ত্রুটিগুলো থেকে যাওয়ায় যেকোনো সময় সাইবার হামলার কবলে পড়তে পারেন ব্যবহারকারীরা।

জানা গেছে, হোয়াটসঅ্যাপের অ্যানড্রয়েড আইওএস সংস্করণে থাকা ত্রুটিগুলো কাজে লাগিয়ে হ্যাকাররা চাইলেই ভিডিও কলে কথা বলার সময় পরিচয় গোপন করে ভিডিও ফাইল পাঠাতে পারে। ক্ষতিকর কোডযুক্ত ফাইলগুলো খুললেই ব্যবহারকারীর মুঠোফোনের নিয়ন্ত্রণ চলে যায় হ্যাকারদের দখলে। ফলে হ্যাকাররা চাইলেই মুঠোফোনের তথ্য সংগ্রহ করার পাশাপাশি হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারে।

ভয়ংকর ত্রুটিগুলো হোয়াটসঅ্যাপের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা দলের সদস্যরাই প্রথম শনাক্ত করেন। হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়েছে, সিভিই২০২২৩৬৯৩৪ এবং সিভিই২০২২২৭৪৯২ নামের ত্রুটিগুলো কাজে লাগিয়ে ভিডিও ফাইলে কোড যুক্ত করে সাইবার হামলা চালানো যায়। বিষয়ে নিজেদের ওয়েবসাইটে সতর্কবার্তা প্রচারের পাশাপাশি দ্রুত হালনাগাদ সংস্করণ ব্যবহারের অনুরোধ করেছে তারা।



মন্তব্য করুন


টেক ইনসাইড

কিউআর কোড এখন হোয়াটসঅ্যাপ প্রোফাইলে

প্রকাশ: ০২:৩৯ পিএম, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail কিউআর কোড এখন হোয়াটসঅ্যাপ প্রোফাইলে

কিউআর কোড  ব্যাবহারের সুবিধা এনেছে হোয়াটসঅ্যাপ। এখন ইউআরএল-এর মাধ্যমে নিজের হোয়াটসঅ্যাপ প্রোফাইল শেয়ার করার সুযোগ পাবেন ব্যবহারকারীরা।

বিটা আপডেটে অ্যানড্রয়েড গ্রাহকরা এ ফিচার ব্যবহার শুরু করতে পারবেন। প্রোফাইল শেয়ার করার নতুন এ বাটন যুক্ত হওয়ার পরে আপনি নিজের প্রোফাইলের একটি লিঙ্ক তৈরি করতে পারবেন। এ লিঙ্কে ট্যাপ করে খুব সহজে আপনার সঙ্গে অন্য যে কোনো ব্যক্তি হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট শুরু করতে পারবেন।

প্রোফাইলের জন্য একটি কিউআর কোড তৈরির সুবিধা দিচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ। যা আপনি সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করতে পারবেন। এর ফলে নিজের ফোন নম্বর শেয়ার না করেই আপনি নিজের হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট শেয়ার করতে পারবেন।

অ্যানড্রয়েড ফোনে : ধাপ ১। স্মার্টফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন। ধাপ ২। এবার ডান দিকে উপরে ‘থ্রি-ডট’ মেনু সিলেক্ট করুন। ধাপ ৩। মেনু থেকে সেটিংস সিলেক্ট করুন। ধাপ ৪। হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট নামের পাশে কিউআর কোড অপশন বেছে নিন। ধাপ ৫। এবার শেয়ার আইকনে ট্যাপ করে কিউআর কোড নিজের গ্যালারিতে সেভ করুন।
আইফোনে : ধাপ ১। আইফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন। ধাপ ২। ডান দিকে নিচে সেটিংস অপশন সিলেক্ট করুন। ধাপ ৩। অ্যাকাউন্ট নামের পাশে কিউআর কোড অপশন বেছে নিন। ধাপ ৪। শেয়ার আইকনে ট্যাপ করে গ্যালারিতে সেভ করুন। 

কিউআর কোড   হোয়াটসঅ্যাপ   প্রোফাইল  


মন্তব্য করুন


টেক ইনসাইড

আসছে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন ফিচার

প্রকাশ: ০৮:৪৯ এএম, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail আসছে হোয়াটসঅ্যাপের নতুন ফিচার

নতুন একটি ফিচার চালু করতে যাচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ। এই ফিচারটিতে পাঠানো বার্তায় বানান বা তথ্য ভুল থাকলে সেই বার্তা পরিবর্তনের সুযোগ থাকছে ফিচারটিতে।

বন্ধু বা পরিচিতদের কাছে পাঠানো বার্তায় বানান বা তথ্য ভুল থাকলে অনেক সময় বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়। আর তাই এবার পাঠানো বার্তা সম্পাদনার সুযোগ চালু করতে যাচ্ছে ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সেবাটি। এর আগে সমস্যা সমাধানে পাঠানো বার্তা ফেরত আনার সুযোগ চালু করেছে হোয়াটসঅ্যাপ।

পাঠানো বার্তা সম্পাদনার সুযোগ দিতে কাজ শুরু করেছে হোয়াটসঅ্যাপ। ‘এডিট মেসেজ’ নামের এ সুবিধা চালু হলে ব্যবহারকারীরা চাইলেই নিজেদের পাঠানো যেকোনো বার্তার তথ্য পরিবর্তনের পাশাপাশি বানান ঠিক করতে পারবেন। ফলে হোয়াটসঅ্যাপের ডিলিট ফর এভরিওয়ান সুবিধার মাধ্যমে পুরো বার্তা মুছে ফেলে নতুন করে বার্তা পাঠাতে হবে না।

এরই মধ্যে নিজেদের অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপের বেটা সংস্করণে ‘এডিট মেসেজ’ সুবিধা যুক্ত করে পরীক্ষা চালাচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ। ফলে ধারণা করা হচ্ছে, অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে চলা যন্ত্রে প্রথম এ সুবিধা ব্যবহারের সুযোগ মিলবে। তবে কবে নাগাদ এ সুবিধা চালু হবে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য জানা যায়নি।

সম্প্রতি পাঠানো বার্তা সম্পাদনার সুযোগ চালুর উদ্যোগ নিয়েছে ব্লগ লেখার সাইট টুইটারও। ‘এডিট টুইট’ নামের এ সুবিধা চালু হলে প্রকাশ করা টুইটের (টুইটারে দেওয়া বার্তা) বানান বা তথ্য সম্পাদনা করা যাবে। প্রাথমিকভাবে নির্দিষ্টসংখ্যক ব্যবহারকারীর জন্য এ সুবিধা উন্মুক্ত করা হবে।

হোয়াটসঅ্যাপ   নতুন ফিচার  


মন্তব্য করুন


টেক ইনসাইড

'দেশের প্রথম ই-নথির বিশ্ববিদ্যালয় হবে হাবিপ্রবি'

প্রকাশ: ১২:০৬ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail 'দেশের প্রথম ই-নথির বিশ্ববিদ্যালয় হবে হাবিপ্রবি'

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি) দেশের প্রথম ই-নথির বিশ্ববিদ্যালয় হবে বলে জানিয়েছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি।

রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫ টায় হাবিপ্রবিকে  স্মার্ট ক্যাম্পাসে রূপান্তরিত করার ঘোষণা দিয়ে  এক মতবিনিময় সভায় একথা বলেন তিনি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জনাব জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আজকের Let’s talk প্রোগ্রামটি হাবিপ্রবিতে হলো যা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মাঝে সর্বপ্রথম। খুব সুন্দর পরিবেশে প্রোগ্রামটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। খুবই অল্প সময়ে হাবিপ্রবিকে আমরা ক্যাশলেস ও পেপারলেস তথা স্মার্ট ক্যাম্পাসে রুপান্তরিত করবো। এ ব্যাপারে খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর স্বপ্ন ছিল বিজ্ঞান মনষ্ক জাতি গঠন। তার সে স্বপ্ন বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। এরই অংশ হিসেবে তিনি হাবিপ্রবিসহ অন্যান্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গুলো প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। পাশাপাশি প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছেন জাতির পিতার দৌহিত্র সজিব আহমেদ ওয়াজেদ জয়।

এসময় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ ও নাহিম রাজ্জাকসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তাবৃন্দ। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান।

সভাপতির বক্তব্যে হাবিপ্রবি’র ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামান বলেন, জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি হাবিপ্রবিকে স্মার্ট ক্যাম্পাসে পরিণত করতে চেয়েছেন। এটি আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া। যে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে হাবিপ্রবি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল তা বাস্তবায়নে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, এর আগে দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে হাবিপ্রবি’র অডিটরিয়াম-২ এ ‘লেটস টক’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তরুণদের সাথে মতবিনিময় সভায় অংশ নেন প্রতিমন্ত্রী।

দেশের প্রথম   ই-নথি   বিশ্ববিদ্যালয়   হাবিপ্রবি  


মন্তব্য করুন


টেক ইনসাইড

দেশে মেটাভার্স বিষয়ক প্রথম সম্মেলন

প্রকাশ: ০১:৩৭ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২


Thumbnail দেশে মেটাভার্স বিষয়ক প্রথম সম্মেলন

দেশে মেটাভার্স প্রথম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে গতকাল। মেটাভার্স প্রযুক্তির উপযোগী গেম তৈরীতে বাংলাদেশি যুবকদের 'বিশাল' সুযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন ।  

শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকার একটি হোটেলে মেটাভার্স নিয়ে প্রথমবারের মতো আয়োজিত 'গেমিং ফর গুডস' শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা ই-স্পোর্টসে বাংলাদেশকে দক্ষিণ এশিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম বাজার হিসেবে উল্লেখ করেন।

ভার্চুয়াল এবং অগমেন্টেড রিয়েলিটির সমন্বিত রূপ হলো মেটাভার্স, যাকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির সংযোগ হিসেবে ধরা হচ্ছে।

দেশে মেটাভার্স প্রযুক্তি নিয়ে প্রথমবারের মতো দারাজ বাংলাদেশ এর সহযোগীতায় এই আয়োজনের সঙ্গে রয়েছে প্রেনিউর ল্যাব।

বাংলাদেশে তৃতীয় প্রজন্মের ইন্টারনেট এবং মেটাভার্স মাধ্যমে গেম উন্নয়নের সম্ভাবনা নিয়ে অধিবেশন পরিচালনা করেন প্রেনিউর ল্যাবের প্রধান নির্বাহী আরিফ নিজামী। দুবাই থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে আগামী দিনের প্রযুক্তি হিসেবে মেটাভার্সকে পরিচয় করিয়ে দেন রয়েক্স টেকনোলজিসের প্রধান নির্বাহী রাজীব রায়।

দিনব্যাপী আয়োজনে দুটি দলবদ্ধ আলোচনায় অংশ নেন বিশেষজ্ঞগণ। বাংলাদেশের গেমিং শিল্প নিয়ে আলোচনা করেন ইউএনডিপি বাংলাদেশের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান আবদুল কাইউম, বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু, বেসিসের পরিচালক তানভীর হোসেন খান। অধিবেশনটি পরিচালনা করেন জাতিসংঘের জাতীয় পরামর্শক তানজিম ফেরদৌস।

বক্তারা বলেন, গ্লোবাল গেমিং ব্যবসায় দেশের তরুণদের স্টার্টআপ করে অংশ নেয়া দরকার। দেশের তরুণরা গেম খেলার সময় অবশ্যই মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে খেয়াল রাখতে ও অন্যান্য নেগেটিভ দিকগুলো পরিহার করতে হবে।   

খেলোয়াড় এবং ডেভেলপাররা পৃথক আলোচনায় অনলাইন গেইমের সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন। আলোচনায় অংশ নেন প্রোগেইমার সাদমান সাকিব খান, মোহাম্মদ আলিউর রহমান সোহান, ফেইসবুকের স্পার্কএআর ডেভেলপার ইশরাত উর্মি এবং আরআরডিএলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মাহির ফায়সাল।

প্রেনিউর ল্যাবের প্রধান নির্বাহী আরিফ নিজামী বলেন, আগামী দিনের প্রযুক্তি হিসেবে সামনে আসছে মেটাভার্স যা দৈনন্দিন জীবন থেকে শুরু করে গেমিং সব ক্ষেত্রেই প্রভাব রাখবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে দশ কোটির বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছেন যাদের বেশিরভাগই মোবাইল ফোনে সংযুক্ত। মেটাভার্সকে সামনে রেখে বৈশ্বিক অনলাইন গেমিং বাজারকে প্রসারিত করার লক্ষ্যে তরুণদের প্রস্তুত করায় জোর দিচ্ছি আমরা।

এই সেশনটির আগে অনলাইন গেমিং উইক এবং স্পার্ক এআর কন্টেস্টে অংশ নেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণ শিক্ষার্থীরা।

মেটাভার্স   প্রথম সম্মেলন  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন